• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

৩৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি বাতিল


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: মে ১৩, ২০২৩, ০২:১১ পিএম
৩৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি বাতিল

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে একদিনে ৩৬ হাজার প্রাথমিক শিক্ষকের চাকরি বাতিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নিয়োগে দুর্নীতির মামলায় কলকাতা হাইকোর্টের এক আদেশে চাকরি হারিয়েছেন তারা।

শনিবার (১৩ মে) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার ও হিন্দুস্তান টাইম পৃথক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। এ সংক্রান্ত যে মামলা দায়ের করা হয়েছিল সেখানে অভিযোগ করা হয়েছিল, প্রশিক্ষিতদের চেয়ে কম নম্বর পেয়েও অনেক অপ্রশিক্ষিত প্রার্থী চাকরির সুপারিশপত্র পেয়েছিলেন।

আদালতের রায় বলা হয়েছে, চাকরি বাতিল হলেও আগামী চার মাস তারা স্কুলে যেতে পারবেন। বেতনও পাবেন তারা। রাজ্যকে আগামী তিন মাসের মধ্যে নতুন করে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করে শেষ করতে হবে। তবে যাদের চাকরি বাতিল হয়েছে, তারা ইতোমধ্যে প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকলে নতুন নিয়োগ প্রক্রিয়ায় তারা অংশ নিতে পারবেন।

মামলাকারীদের আইনজীবীর বক্তব্য, মামলাকারীদের থেকে কম নম্বর প্রাপ্ত অনেককে চাকরি দেওয়া হয়েছে। ২০১৬ সালের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় প্যানেলে ৮২৪ জনের নাম ছিল। মামলাকারীরা ইন্টারভিউ না দিয়েই তাদের থেকে বেশি নম্বর পেয়েছিলেন। তারপর ১৩৯ জনের একটি তালিকা তৈরি করা হয়, চাকরি যারা পেয়েছেন, তাদের থেকেও এই ১৩৯ জনের নম্বর বেশি ছিল।

আইনজীবীর দাবি, ৩০ হাজারের বেশি এমন প্রার্থী নিয়োগ করা হয়েছিল, যাদের নম্বর মামলাকারীদের থেকে কম

এর আগে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই) তদন্ত শুরু করে। তদন্তের দায়িত্ব সিবিআই-এর কাছে আসার পর তারা এখন পর্যন্ত ১১ জনকে গ্ৰেপ্তার করে ও উদ্ধার করা হয় কোটি কোটি রুপি। ওই মামলায় কলকাতা হাইকোর্ট অপ্রশিক্ষিত প্রাপ্ত ও অবৈধ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকরি পাওয়া ৩৬ হাজার শিক্ষকের চাকরি বাতিল করেছেন।

পশ্চিমবঙ্গের প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের সভাপতি গৌতম পাল জানান, আদালত যে নির্দেশই দিক না কেন। চাকরি প্রার্থীদের চাকরি নিয়ে বিতর্ক থাকলেও তাদের পাশেই আছে প্রাথমিক শিক্ষাপর্ষদ। আমরা আইনি পরামর্শ নিচ্ছি। আদালতেও আবেদন করতে যাচ্ছি। নিয়ম মেনে প্রত্যেকের প্রশিক্ষণ করানো হয়েছে। বর্তমানে প্রশিক্ষনবিহীন কেউ নেই।

Link copied!