• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

রক্তস্বল্পতা দূর করে কিশমিশ ভেজানো পানি


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: জুন ৮, ২০২৩, ১২:০৬ পিএম
রক্তস্বল্পতা দূর করে কিশমিশ ভেজানো পানি

বিভিন্ন কারণে আমাদের শরীরে রক্তস্বল্পতা তৈরি হতে পারে। বিশেষ করে যারা পুষ্টিকর খাবার থেকে বঞ্চিত, তাদের রক্তস্বল্পতার প্রবণতা বেশি হয়। রক্তস্বল্পতা রোগের চিকিৎসার জন্য প্রথমে পরিবর্তন আনতে হবে আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায়। যেসব খাবারের রক্তস্বল্পতা দূর করার ক্ষমতা রয়েছে, সেসব খাবার খেতে হবে নিয়মিত। তবে রক্তস্বল্পতা রোধের জন্য কিশমিশ ভেজানো পানি বেশ কার্যকর। চলুন জেনে নেব কিশমিশ ভেজানো পানি খাওয়ার উপকারিতা।

ডিটক্সিফিকেশন
অস্বাস্থ্যকর খাওয়াদাওয়া, ঘরে-বাইরে নানা রকম মানসিক চাপ থেকে প্রতিদিন শরীরে টক্সিন জমা হতে থাকে। কিশমিশে থাকা অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট, পলিফেনল এই টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে।

রক্তস্বল্পতা দূর করে
শরীরে আয়রনের ঘাটতি দূর করে কিশমিশ। নারীদের মধ্যে রক্তাল্পতার সমস্যা দেখা যায় বেশি। পর্যাপ্ত পরিমাণে লোহিত কণিকা তৈরি না হলে, রক্তস্বল্পতার সমস্যা দেখা যায়। কিশমিশ ভেজানো পানি এই সমস্যা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করে। স্বাভাবিকভাবে লোহিত কণিকা উৎপাদনে সাহায্য করে কিশমিশ।

ইলেকট্রোলাইটের ভারসাম্য
পানি খেলে শরীরে পানির ঘাটতিই পূরণ হয় কেবল। কিন্তু ঘামের মধ্য দিয়ে যে সব খনিজ শরীর থেকে বেরিয়ে যায়, তা শুধু পানি খেয়ে পূরণ করা সম্ভব নয়। সেটি পূরণ করতে পারে এই কিশমিশ ভেজানো পানীয়।

তৈরি করবেন যেভাবে
এক মুঠো কিশমিশ পরিষ্কার পানিতে ভালো করে ধুয়ে নিন। এবার একটি পাত্রে ধুয়ে রাখা কিশমিশ সামান্য পানি দিয়ে সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন। পরের দিন সকালে ওই পানিসহ কিশমিশ ব্লেন্ডারে দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। এবার ওই মিশ্রণ ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে নিন। সকালে খালি পেটে বা কিছুক্ষণ ফ্রিজে রেখে এই পানি খেতে পারেন।

Link copied!