• ঢাকা
  • সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১, ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫
৭ কলেজ শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

দাবি না মানলে আত্মহত্যার হুমকি


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ২৭, ২০২৩, ০৫:২৩ পিএম
কাফনের কাপড় মুড়িয়ে নীলক্ষেত মোড়ে সড়কে এভাবেই অবস্থান নেয় ৭ কলেজ শিক্ষার্থীরা

সিজিপিএ শিথিল করে তিন বিষয় পর্যন্ত মানোন্নয়ন পরীক্ষার মাধ্যমে পরবর্তী বর্ষে প্রমোশনের এক দফা দাবিতে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করেছেন সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবি মেনে না নিলে আত্মহত্যার হুমকিও দেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ।

রোববার (২৭ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে মিছিল নিয়ে নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

ইতোমধ্যে অনেক শিক্ষার্থী কাফনের কাপড় গায়ে মুড়িয়ে রাস্তায় শুয়ে পড়েন। গরমে অসুস্থ হয়ে পড়লে কয়েকজন শিক্ষার্থীকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

চিকিৎসাধীন শিক্ষার্থীরা হলেন বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের অর্থনীতির চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী সোনিয়া আক্তার (২৩), কবি নজরুল কলেজের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র তৌকিবুর হাসান বাপ্পি (২৪) ও সাদেক বাপ্পি (২৩), ঢাকা কলেজের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শাহরিয়ার মাহমুদ অপু (২৫) ও ইয়াসিন আলী সাগর (২৫), সরকারি তিতুমীর কলেজের ইংরেজি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের মাহবুব প্লাবন (২২) এবং বাঙলা কলেজের একাউন্টিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের রাজিব ইসলাম (২৩)।

আন্দোলনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফল প্রকাশে দীর্ঘসূত্রতা তৈরি করেছে। এতে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিপাকে পড়েছেন। এর দায়ভার সম্পূর্ণভাবে বিশ্ববিদ্যালয় ও সাত কলেজ প্রশাসনকে নিতে হবে। কারণ বিশ্ববিদ্যালয় জোর করে সাত কলেজের ওপর সিজিপিএ শর্ত চাপিয়ে দিয়েছে।

এ সময় তাদের দাবি মেনে নেওয়া না হলে একসঙ্গে আত্মহত্যার হুমকি দেন। সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা স্লোগান দিয়ে বলতে থাকেন, “৯ মাসে রেজাল্ট কেন, জবাব চাই জবাব চাই, ঢাবি তোমার প্রহসন, মানি না মানবো না। এক দফা এক দাবি, মেনে নাও মেনে নাও, সাত কলেজের এক দাবি মানতে হবে মানতে হবে।”

উল্লেখ্য, সিজিপিএর শর্ত শিথিল পূর্বক পরবর্তী বর্ষে প্রোমোশন দেওয়া, তিন মাসের মধ্যে পরীক্ষার রেজাল্ট দেয়াসহ বেশ কিছু দাবিতে রাজধানীর নীলক্ষেত এলাকায় অবরোধ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

Link copied!