• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

গণটিকাদানের শেষ দিন


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: আগস্ট ১২, ২০২১, ১০:০৯ এএম
গণটিকাদানের শেষ দিন

বৃহস্পতিবার (১২ আগস্ট) গণটিকাদান কার্যক্রমের শেষ দিন। এই দিন টিকা গ্রহণে কেন্দ্রগুলোতে সকাল থেকেই ভিড় করছেন সাধারণ মানুষ। রাতভর টিকার অপেক্ষায় কেন্দ্রের বাইরে দাঁড়িয়ে থেকেছেনও অনেকে।

সকালে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, গণটিকাদানের কেন্দ্রগুলোর সামনে লাইন করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন শত শত মানুষ। শেষ দিন টিকা পাওয়ার আশায় অনেকে মধ্যরাত থেকেই লাইনে দাঁড়িয়েছেন। 

অপেক্ষমাণ মানুষের অভিযোগ, গত দুই দিন লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়েও টিকা নিতে পারেননি। সে কারণেই রাত থেকেই টিকার লাইনে দাঁড়িয়েছেন তারা।

গণটিকা কার্যক্রম শুরুর পর থেকেই মানুষের মধ্যে টিকা গ্রহণে আগ্রহ বেড়েছে। বয়সসীমা ২৫ বছর করায় তরুণ-তরুণীরাও টিকা নিচ্ছেন। লাইনে বয়স্ক নারী পুরুষ, তরুণ ছেলেমেয়েরা ভিড় করতে দেখা গেছে।

রাজধানীর মগবাজার, রামপুরা, খিলগাঁও, ধানমন্ডি এলাকার গণটিকা কেন্দ্রগুলোতে ঘুরে একই চিত্র দেখা যায়।

টিকা নিতে আসা জোবাইদা খানম বলেন, “ভোর হওয়ার পর পরই টিকা নিতে আসি। দুই দিন ফিরে গেছি। ঘণ্টাখানেক পর বলে টিকা শেষ। লাইনে দাঁড়ানোরও কোনো স্বাস্থ্যবিধি নেই। সবাই একসঙ্গে গাদাগাদি করে দাঁড়াচ্ছে। বয়স্ক বাবা-মাকে টিকা দেব। আমি টিকা নেব। কোনোভাবেই নিতে পারছি না। আরও সমন্বয় করে গণটিকা চালু করা উচিত ছিল।”

টিকাকেন্দ্রে অনেকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয় বলে সঙ্গে চেয়ারে কিংবা টুল, শুকনো খাবারও নিয়ে এসেছেন। 

টিকা নিতে আসা এনায়েতুল্লাহ বলেন, “অনেক জায়গায় এখন টিকার কার্ড দেখাতে হবে। অফিসেও বাধ্যতামূলক করেছে। টিকা না নিলে অফিসেও যাওয়া যাবে না। তাই টিকা নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে।”

৭ আগস্ট থেকে গণটিকা কার্যক্রমের বিশেষ ক্যাম্পেইন শুরু করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। দেশে এ পর্যন্ত ২ কোটি ৮৯ হাজার ১০৭ জন মানুষ করোনাভাইরাসের টিকার আওতায় এসেছে। প্রথম ডোজ পেয়েছেন ১ কোটি ৫০ লাখ ২৩ হাজার ১৬২ জন। দ্বিতীয় ডোজের আওতায় এসেছেন ৫০ লাখ ৬৫ হাজার ৯৪৫ জন মানুষ।

এছাড়া বুধবার (১১ আগস্ট) বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ২ কোটি ৯৫ লাখ ৫৫১ হাজার ৫৬৬ জন করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন। 

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, দেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কোভিশিল্ড টিকা নিয়েছেন ১ কোটি ৫ লাখ ৯০ হাজার ৯১৮ জন। চীনের সিনোফার্মের টিকা নিয়েছেন ৭১ লাখ ৯৪ হাজার ৮৭২ জন। ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা নিয়েছেন ৮২ হাজার ৭৩৪ জন। আর মডার্নার টিকা নিয়েছেন ২২ লাখ ২০ হাজার ৫৮৩ জন।

Link copied!