• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

ইতালিতে ভয়াবহ বন্যায় বাস্তুচ্যুত ৩৬ হাজারের বেশি মানুষ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: মে ২১, ২০২৩, ০১:০৩ পিএম
ইতালিতে ভয়াবহ বন্যায় বাস্তুচ্যুত ৩৬ হাজারের বেশি মানুষ

ইতালির উত্তর-পূর্বাঞ্চলে ভয়াবহ বন্যায় ৩৬ হাজারেরও বেশি লোক তাদের বাড়িঘর ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। শনিবার দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ এখন পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। এমিলা রোমাগনা অঞ্চলের নগর ও শহরের রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে নদীতে রূপ নিয়েছে। আরও বৃষ্টি হওয়ার প্রেক্ষাপটে কর্তৃপক্ষ আবহাওয়ার রেড অ্যালার্ট (লাল সতর্কতা) রোববার পর্যন্ত বাড়িয়েছে।

ইতালির প্রধানমন্ত্রী জর্জিয়া মেলোনি গতকাল শনিবার বলেছেন, ইতালির জরুরি অবস্থা মোকাবিলায় জাপানের জি-৭ শীর্ষ সম্মেলন থেকে চলে যাচ্ছি। জটিল এই মুহূর্তে ইতালি থেকে আমি দূরে থাকতে পারছি না।

তিনি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করার জন্য উদ্ধারকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবকদের প্রায় ৫ হাজার সদস্যকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

উদ্ধারকর্মীদের দাবি, উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় ইতালি পুরোপুরি ডুবে গেছে বন্যার পানিতে। রেকর্ড করা হয় তিন শতাধিক ভূমিধসের ঘটনাও। তাছাড়া অঞ্চলটির সঙ্গে সংযুক্ত পাঁচ শতাধিক রাস্তা ডুবে যাওয়ায়; ক্ষতিগ্রস্ত যোগাযোগ ব্যবস্থা। ভেলা বা হেলিকপ্টারের মাধ্যমে সরানো হচ্ছে দুর্গত এলাকার বাসিন্দাদের। শনিবার রাভেনার কর্তৃপক্ষ অধিক ঝুঁকিপূর্ণ গ্রামগুলো থেকে মানুষদের অবিলম্বে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

আজ রোববার (২১ মে) ইতালির প্রধানমন্ত্রীর বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এমিলা রোমাগনা অঞ্চলে গত ৩৬ ঘণ্টায় ব্যাপক বৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানের বন্যাকে গত এক শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বন্যার কারণে ৩০৫টি ভূমিধস এবং ৫০০টির বেশি সড়ক বন্ধ হয়ে গেছে।

দেশটির ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে, শনিবার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা মেরামতের কাজে নিয়োজিত একটি হেলিকপ্টার লুগোর কাছে বিধ্বস্ত হয়ে একজন আহত হয়।

এসব সড়ক মেরামতে কয়েক মাস কিংবা বছরও লেগে যেতে পারে বলে উল্লেখ করেন বন্যা কবলিত বলোগনার মেয়র মাত্তিও লিপোর।

Link copied!