• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে কিশমিশের পানি, এছাড়াও আছে বহু গুণ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: মে ১৫, ২০২৪, ০৬:৩৪ পিএম
রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে কিশমিশের পানি, এছাড়াও আছে বহু গুণ
রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখে কিশমিশের পানি। ছবিঃ সংগৃহীত

কিশিমিশ আমাদের প্রায় সবারই চেনা। খাবারে বিশেষ করে মিষ্টি জাতীয় খাবারে এর বহুল ব্যবহার রয়েছে। ভিটামিন এবং মিনারেল সমৃদ্ধ কিশমিশ খেতে পারেন পানিতে ভিজিয়েও। সারা রাত ভেজার পর ওই পানির মধ্যে কিশমিশের যাবতীয় উপাদান দ্রবীভূত হয়ে যায়। পুষ্টিবিদরা বলে, নানা পুষ্টিগুণে ভরপুর কিশমিশ রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে খেলে অনেক উপকার পাওয়া যায়। ভেজানো কিশমিশ পানিসহ খেলে আরও দ্রুত উপকার মেলে।

তাই কিশমিশ ভেজানো পানি ফেলে দেওয়ার কোনও মানেই হয় না। কিন্তু এই পানীয় ঠিক কী কী উপকারে লাগে?

  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের প্রাকৃতিক পদ্ধতিগুলোর মধ্যে একটি কিসমিস। এর মধ্যে থাকা পটাসিয়াম হাই ব্লাড প্রেসার বশে রাখে।
  • কিশমিশ ভেজানো পানির মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টের পরিমাণ যথেষ্ট। ফ্রি র‌্যাডিক্যালের হাত থেকে ত্বককে রক্ষা করে এই পানীয়। এর মধ্যে থাকা ভিটামিন সি রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা উন্নত করতেও সাহায্য করে। এই পানিতে আছে ভিটামিন ‍‍`এ‍‍` এবং ‍‍`ই‍‍`। এই ভিটামিনগুলো ত্বককে ভেতর থেকে ভালো রাখে।
  • রক্তে আয়রনের অভাব হলে নিয়মিত কিশমিশ ভেজানো পানি খাওয়া যেতে পারে। এতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন আছে যা রক্তশূণ্যতার রোগীর জন্য খুব উপকারী। এছাড়া রক্ত ও লোহিত কণিকা তৈরি জন্য দরকার ভিটামিন বি কমপ্লেক্স ও কপার, যা কিশমিশে থাকে।
  • অন্ত্র ভাল রাখতে, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে ফাইবার। কিশমিশের পানিতে থাকে প্রচুর ফাইবার।  ভেজানো কিশমিশ হজমের সমস্যা উন্নত করে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা কমায় এবং পেট পরিষ্কার রাখে।
  • কিশমিশে আছে অ্যান্টি ব্যাক্টেরিয়াল উপাদান, যা মুখের স্বাস্থ্য রক্ষায় ও দুর্গন্ধ দূর করতে সাহায্য করে।
  • বোরন হাড় গঠনের জন্য প্রয়োজন, যা কিশমিশে প্রচুর পরিমাণে থাকে। এতে আরও রয়েছে ক্যালসিয়াম ও মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট। প্রতিদিন ভেজা কিশমিশ খাওয়া হাড় সুস্থ ও সুদৃঢ় রাখতে সাহায্য করে।
  • অস্বাস্থ্যকর খাওয়াদাওয়া, ঘরে-বাইরে নানা রকম মানসিক চাপ থেকে প্রতিদিন শরীরে টক্সিন জমা হতে থাকে। কিশমিশে থাকা অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট, পলিফেনল এই টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে।
  • শরীরের জন্য ক্ষতিকর কোলেস্টেরল দূর করে হার্ট ভালো রাখে।
  • এতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
Link copied!