• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

সুইট কর্ণ, না দেশি ভুট্টা?


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ১০, ২০২১, ০৯:১৪ এএম
সুইট কর্ণ, না দেশি ভুট্টা?

ভুট্টা দিয়ে পপ কর্ণ বানিয়ে খেতে অনেকেই পছন্দ করেন। অনেকে দেশি ভুট্টা পুড়িয়ে খেতে ভালোবাসেন। তরুণ-তরুণীদের আবার সুইট কর্ণ পছন্দ। এই দুই ধরনের ভুট্টার স্বাদ দুই রকম। দুটোই খেতে বেশ সুস্বাদু। তবে পুষ্টিগুণে সুইট কর্ণ ও দেশি ভুট্টার মধ্যে কিছুটা পার্থক্য রয়েছে।

সম্প্রতি ভারতের জনপ্রিয় নিউট্রেশনিস্ট মুনমুন গনেরিওয়াল এই দুই ধরনের ভুট্টার পুষ্টির পার্থক্য তুলে ধরেছেন। তার সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্টে সুইট কর্ণ আর সাধারণ ভুট্টার তফাৎগত কিছু দিক তুলে ধরেছেন।

গনেরিওয়াল লিখেছেন, “সুইট কর্ণ হাইব্রিড বীজ থেকে তৈরি হয়, যার ফলে অনেক বেশি রিসোর্সের প্রয়োজন হয়।… সুইট কর্ণের উৎপাদনের জন্য একটা নির্দিষ্ট পরিমাণের কীটনাশকের ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া এর মধ্যে যে চিনির পরিমাণ থাকে, সেটাই যথেষ্ট এর পুষ্টিগুণ কমিয়ে দেওয়ার জন্য।”

অন্যদিকে দেশি এই ভুট্টা চাষ করতে সামান্য পানি আর সার লাগে। অন্যান্য ফসলের সঙ্গে যখন এই ভুট্টা চাষ করা হয়, তখন এ নিজেই কীটনাশক হিসেবে কাজ করে। এগুলোর পরিপূর্ণ ফলন হলেই কাটা হয়। এতে যে সুবিধাটি হয়, তা হলো ফলন সম্পূর্ণ হওয়ায় ভুট্টার মধ্যেকার শর্করা স্বাভাবিকভাবেই জটিল স্টার্চে পরিণত হয়ে যায়। এছাড়া সুইট কর্ণের মতো, চিনির কারণে পুষ্টি নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে না।” 


“সাধারণ ভুট্টায় ফাইবারের যে বিশিষ্ট উপাদান থাকে, তা রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতাকে বাড়ায় এবং পরিপাকতন্ত্রকেও ভালো রাখে।”

গনেরিওয়াল আরও লিখেছেন, “সুইট কর্ণ সারা বছর তো পাওয়াই যায়। কিন্তু দেশি ভুট্টার সময় শুধু বর্ষাকাল। তাই সময় নষ্ট না করে, বর্ষার আর যে কটা দিন বাকি আছে, ভালো করে ভুট্টা খেয়ে নিন।”

এছাড়া স্বাস্থ্যবিদরা বলছেন, সাধারণ ভুট্টার বেশ কিছু উপকারিতা রয়েছে। এক কাপ ভুট্টায় ২৯ গ্রাম শর্করা থাকে, যা প্রতিদিন খেলেও ওজন বেড়ে চিন্তা নেই। ভুট্টা আঁশে ভরা। এতে পরিপাকতন্ত্র সুস্থ থাকে। এতে বায়োফ্লাভোনয়েডস ও ক্যারোটিনয়েডসের মতো প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে, যা শরীরকে সুস্থ রাখে। গরম-গরম ভুট্টা খেলে সংক্রমণের ঝুঁকি কমে। ভুট্টায় ভিটামিন এ, সি ও লাইকোপিন ত্বককে উজ্জ্বল করে। ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূরে রাখে। এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে। যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে এবং হজমে সহায়তা করে।

এছাড়া প্রচুর পরিমাণে আয়রন ও ভিটামিন বি১২ বর্তমান, যা নতুন রক্তকোষ তৈরি করতে সাহায্য করে। এতে রক্তাল্পতা দূর হয়। এটি মস্তিষ্ক ও স্নায়ুতন্ত্রের সঠিক কার্যক্রমের সহায়ক। এলডিএল নামে শরীরে বাজে কোলস্টেরল ভুট্টা দূর করে। দেশি ভুট্টায় ভিটামিন এ থাকে, যা দৃষ্টিশক্তি প্রখর করে।

 

সূত্র: টিভিনাইন

Link copied!