• ঢাকা
  • রবিবার, ২১ জুলাই, ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৪ মুহররম ১৪৪৫
২০২৪-২৫ অর্থবছর

‘পিডিবির লোকসান হবে ১৮ হাজার কোটি টাকা’


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: জুন ২৪, ২০২৪, ১০:০৫ এএম
‘পিডিবির লোকসান হবে ১৮ হাজার কোটি টাকা’
সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম। ছবি : সংগৃহীত

সরকারের ‘ভুল নীতির’ কারণে ২০২৪-২৫ অর্থবছর নাগাদ বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) লোকসান ১৮ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হতে পারে বলে প্রাক্কলন করেছে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।

রোববার (২৩ জুন) রাজধানীর মহাখালীতে ব্রাক ইন সেন্টারে সিপিডি আয়োজিত বিদ্যুত খাতে বাজেট বরাদ্দ নিয়ে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে এ কথা বলে সংস্থাটি।

সিপিডির গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, “বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি এবং সরকারের ভর্তুকি দেওয়ার পরও এই বিপুল পরিমাণ লোকসান হবে বোর্ডের।”

ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, “চাহিদার চেয়ে বিদ্যুতের উৎপাদন সক্ষমতা ৪৬.৪ শতাংশ বেশি। দেশে এখন বিদ্যুতের উৎপাদন সক্ষমতা ৩০ হাজার ৭৩৮ মেগাওয়াট, কিন্তু পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ১৪ হাজার মেগাওয়াট। এর ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদন না করেও ক্যাপাসিটি চার্জ বাবদ বিপুল টাকা যাচ্ছে সরকারের তহবিল থেকে।”

সিপিডির গবেষণা পরিচালক আরও বলেন, “বিতরণ ও সঞ্চালন লাইনের সীমাবদ্ধতার কারণে চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাচ্ছে না। ফলে উদ্বৃত্ত বিদ্যুৎ সক্ষমতা থাকার পরও বিদ্যুতের লোডশেডিং হচ্ছে। অপরদিকে উদ্বৃত্ত সক্ষমতার বিদ্যুৎকেন্দ্র বসিয়ে রেখে বিপুল পরিমাণ ক্যাপাসিটি চার্জ দিতে হচ্ছে। এর ফলে পিডিবির লোকসান বাড়ছে। সেইসঙ্গে ভোক্তার বিদ্যুতের দামও বাড়ছে।”

ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, “সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের যে পরিকল্পনা নিয়েছে সেটি উচ্চাভিলাষী। ওই সময় ২৫ শতাংশ অতিরিক্ত রিজার্ভ ধরেও সর্বোচ্চ ৩৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ হলেই যথেষ্ট হবে।”
 

Link copied!