• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০১ মার্চ, ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৯ শা’বান ১৪৪৫

পদ্ম ফুলে সেজেছে সোনাকান্ত বিল


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ১২, ২০২৩, ১১:৩৩ এএম
পদ্ম ফুলে সেজেছে সোনাকান্ত বিল

প্রাকৃতিক সৌন্দর্য আর জলের ওপর সবুজ পাতা ভেদ করে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় লাল, সাদা পদ্মে ছেয়ে গেছে সোনাকান্ত বিল। ভাসমান একেকটি পদ্মের রূপশোভা অভিভূত করে যেকোনো বয়সের মানুষকে। এই পদ্ম ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করে প্রতিদিনই সোনাকান্ত বিলে ভিড় করছেন পদ্মপ্রেমীরা। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার হাটিকুমরুল ইউনিয়নের আমডাঙ্গা গ্রামে এ বিলটি অবস্থিত।

স্থানীয়রা জানান, সোনাকান্ত বিল প্রায় ৪০ বিঘা জায়গা জুড়ে বিস্তৃত। তবে এ বিলে পানি শুকিয়ে গেলে বছরে একবার বোরো ধানের চাষ হয়। অপেক্ষাকৃত নিচু জমি হওয়ায় বর্ষায় ছয় মাসেরও বেশি সময় এখানে পানি জমে থাকে। বর্ষাকালে এ বিলের অধিকাংশ জমিতেই প্রাকৃতিকভাবে পদ্ম ফুল জন্মে। এ কারণে এখন এ বিলটি ‘সোনাকান্ত পদ্মবিল’ নামেই পরিচিত।

তবে সোনাকান্ত পদ্মবিলে সবাই যে সৌন্দর্য উপভোগ করতে আসে, তা কিন্তু নয়। নিম্নবিত্ত পরিবারের কিছু কিছু ছেলেমেয়ে এই বিল থেকে পদ্ম সংগ্রহ করে তা বাজারে বিক্রি করে থাকেন।

শিশু মনির ও মাহি জানায়, প্রতিদিন পদ্ম গাছ থেকে ফুল সংগ্রহ করে তারা। প্রতিদিন ২৫০ থেকে ৩০০ টাকার ফুল বাজারে বিক্রি করে থাকেন।

দর্শনার্থীরা জানান, গত দুই বছর আগেও এই বিলে পদ্ম ফুল ছিলো হাতেগোনার মতো। কিন্তু এ বছর এই বিলে সাদা ও গোলাপি রঙের পদ্ম ফুল। চোখ যত দূরে যায় শুধু পদ্ম আর পদ্ম। এমন পদ্ম সচরাচর দেখা যায় না। আর পুরো বিলজুড়ে পদ্মের এমন গোলাপি আভা দেখা সত্যি আনন্দের।

বিলের জমির মালিক রফিকুল ও ছাত্তার বলেন,  “এই বিলে বর্ষা মৌসুমে পদ্ম ফুল ফোটে। এতে বিলের সৌন্দর্য বেড়ে যায়। এলাকার ও দূরের লোকজন প্রতিদিন পদ্ম ফুলের মনোরম দৃশ্য দেখতে আসেন। অনেকে পদ্ম ফুল তুলে বাজারেও বিক্রি করছেন।”

জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপসহকারী কৃষি অফিসার মো. শামীমুর ইসলাম বলেন, “গত দুই বছর থেকে বর্ষায় উপজেলার সোনাকান্ত বিলে পদ্ম ফুলের দেখা মিলছে। পদ্ম ফুলে ঔষধি গুণাগুণও অনেক। কৃষি জমিতে কীটনাশকের ব্যবহার কমে যাওয়ায় শাপলা ও পদ্মের দেখা মিলছে। কৃষক জমিতে কীটনাশকের ব্যবহার কমিয়ে দিলে এই ফুল বিলুপ্তির হাত থেকে ফিরে আসবে।”

এ বিষয়ে উল্লাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবর্ণা ইয়াসমিন সুমি বলেন, “এটি জলজ উদ্ভিদ। সোনাকান্ত বিল এবার পদ্ম ফুলে ছেয়ে গেছে। অনেক দর্শনার্থী এ বিলে আসছেন। বিলটি এখন একটি দর্শনীয় স্থানে পরিণত হয়েছে।”

জেলার সরকারি কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মো.ইয়াসিন আলী বলেন, “পদ্ম ফুলের নানা ঔষধি গুণ রয়েছে। এক সময় আমাদের দেশে বিলে বিলে অনেক পদ্ম ফুল দেখা যেত। কিন্তু বর্তমানে জলাশয় ভরাটের ফলে এই ফুল এখন বিলুপ্তির পথে। পদ্ম ফুলের বিস্তার ঘটাতে এবং এই ফুলের গুরুত্ব বিবেচনায় পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। এ বছর উল্লাপাড়ার সোনাকান্ত বিল ছাড়াও বেলকুচি, তাড়াশ ও রায়গঞ্জ উপজেলার কয়েকটি বিলেও পদ্ম ফুল ফুটেছে।” 

Link copied!