• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

চুয়াডাঙ্গায় শহীদ দিবস পালিত


চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ৫, ২০২১, ০৭:৫৮ পিএম
চুয়াডাঙ্গায় শহীদ দিবস পালিত

আজ ৫ আগস্ট, চুয়াডাঙ্গার স্থানীয় শহীদ দিবস। ১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে চুয়াডাঙ্গার আট বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্মুখ সমরে শহীদ হন। দেশ স্বাধীনের পর আট শহীদের আত্মত্যাগকে স্মরণ করে দিবসটিকে স্থানীয় শহীদ দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

১৯৭১ সালের ৫ আগস্ট ছিল বৃহস্পতিবার। ওইদিন চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের সীমান্তবর্তী গ্রাম বাগোয়ান-রতনপুরে পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মুখ যুদ্ধ শুরু হয়। ওই যুদ্ধে আটজন বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।

তারা হলেন হাসান জামান, আবুল কাশেম, রবিউল ইসলাম, কিয়ামুদ্দিন, আফাজ উদ্দীন, আলাউল ইসলাম খোকন, রওশন আলম ও খালেদ সাইফুদ্দিন আহম্মেদ তারেক।

চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের কিতাব হালসানার জমিতে আট শহীদের লাশ দুটি কবরে মাটিচাপা দিয়ে দাফন করা হয়। স্বাধীনতার পর ওই কবরের ওপরই নির্মাণ করা হয়েছে স্মৃতিসৌধ। যা ‘আটকবর’ নামে পরিচিতি পেয়েছে। এছাড়াও এ সমস্ত শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিকে আরো স্মরণীয় করে রাখতে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় তাদের কবরের পাশে নির্মাণ করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ সংগ্রহশালা ও অডিটোরিয়াম।

প্রতি বছরের মতো এবারও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, জেলা আওয়ামী লীগসহ স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠন যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালনের জন্য নানা কর্মসূচি গ্রহণ করে।

দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় দামুড়হুদার আটকবর স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দার ছেলুন ও ২ আসনের সংসদ সদস্য আলি আজগর টগর।

এছাড়াও জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ শহীদ বেদিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এরপর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার নুরুল ইসলাম ও এই রনাঙ্গনের সন্মুখ মুক্তিযোদ্ধা ফটিক স্মৃতিচারণ করেন।

এর আগে জাতীয় পতাকা, কালো পতাকা ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া-মোনাজাত করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মুফতি মো. মাসুদ উজ্জামান লিটু বিশ্বাস।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মো. জাহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মনিরা পারভীন, দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলী মুনসুর বাবু, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন, দামুড়হুদা ইউএনও দিলারা রহমান, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হানান, দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু ও সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মনজু প্রমুখ।

Link copied!