• ঢাকা
  • বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৮ শা’বান ১৪৪৫

অতিরিক্ত মাছ খেলে কী হয়?


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ১৬, ২০২৩, ০২:০৩ পিএম
অতিরিক্ত মাছ খেলে কী হয়?

প্রবাদে আছে মাছে-ভাতে বাঙালি। মাছ ছাড়া বাঙালির একদিনও যেন চলে না। আবার কিছু মাছপ্রিয় মানুষ আছেন যারা একসঙ্গে অনেক মাছ খেয়ে নেন একবারে। মাছ সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর এবং সুস্বাদু খাবারগুলোর মধ্যে একটি। এটি প্রোটিন, ওমেগা -থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পুষ্টিতে পরিপূর্ণ। কিন্তু অনেক সময় খুব বেশি ভালো খাবারও অন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ হতে পারে। চলুন জেনে নেবো অতিরিক্ত মাছ খেলে কী ক্ষতি হতে পারে-

অত্যধিক লবণ 
মাছে সোডিয়াম বেশি থাকতে পারে, যা অন্ত্রে ভারসাম্যহীনতা তৈরির জন্য দায়ী। সোডিয়াম বেশি থাকলে পেট ফুলে যাওয়া এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো হজমের সমস্যা তৈরি হতে পারে।

ফাইবারের অভাব 
মাছে উল্লেখযোগ্য পরিমাণে ফাইবার থাকে না। ফাইবারের অভাব খারাপ অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি এবং অন্ত্রের মাইক্রোবায়োমে ভারসাম্যহীনতার কারণ হতে পারে। একটি সুস্থ অন্ত্র নিশ্চিত করার জন্য, শাকসবজি, ফলমূল এবং গোটা শস্যের মতো ফাইবার সমৃদ্ধ বিভিন্ন ধরনের খাবার খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

অস্বাস্থ্যকর চর্বি 
কিছু মাছে অস্বাস্থ্যকর চর্বি থাকে যেমন ট্রান্স ফ্যাট এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট। এই চর্বিগুলি অন্ত্রে প্রদাহ বাড়াতে পারে এবং ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম (আইবিএস) এর মতো হজমের সমস্যা হতে পারে। তাই অস্বাস্থ্যকর চর্বি কম এমন মাছ বেছে নেওয়া ভালো।

পারদের উচ্চ মাত্রা 
অনেক ধরনের মাছে উচ্চ মাত্রার পারদ থাকে, যা বমি বমি ভাব, বমি এবং পেটে ব্যথার মতো হজমের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এছাড়াও, পারদ অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে এবং খাবার সঠিকভাবে হজম করার ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে। এ কারণে,পরিমিত পরিমাণে মাছ খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

অত্যাধিক অ্যান্টিবায়োটিক 
চাষ করা মাছে প্রায়ই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়। এটি অন্ত্রে খারাপ ব্যাকটেরিয়ার অতিরিক্ত বৃদ্ধি এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সংক্রমণ এবং অন্যান্য হজমের সমস্যার ঝুঁকি বাড়াতে পারে। এ কারণে চাষ করা মাছ খাওয়ার পরে কিছুটা সতর্ক থাকতে হবে।  

অ্যালার্জি 
অনেকের বিভিন্ন মাছে অ্যালার্জি রয়েছে। সেসব মাছ খেলে কারও কারও পেটে খিঁচুনি, ডায়রিয়া এবং বমি হওয়ার মতো বদহজমের লক্ষণ হতে পারে। এ কারণে কোনো মাছ খাওয়ার পরে অ্যালার্জি বা অন্য কোনো শারীরিক সমস্যা হলে চিকিৎসকের সাথে কথা বলা গুরুত্বপূর্ণ।

Link copied!