• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বৃষ্টিতে রঙিন ব্যাঙের মেলা


চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: মে ২৪, ২০২৪, ০২:১২ পিএম
বৃষ্টিতে রঙিন ব্যাঙের মেলা
বৃষ্টির নতুন পানিতে জমেছে রঙিন ব্যাঙের আনন্দমেলা। ছবি: প্রতিনিধি

বর্ষার বার্তা জানান দিতে শুরু হয়েছে বৃষ্টি। আর বৃষ্টির নতুন পানি পেয়ে শুরু হয়েছে ব্যাঙের হাঁকডাক। দীর্ঘদিন বৃষ্টিশূন্য থাকলেও চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক দিনের গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির পর ব্যাঙেদের মধ্যে যেন বইছে আনন্দের বন্যা। বৃষ্টির নতুন পানিতে বিভিন্ন এলাকায় জলাধারে দেখা যায় ব্যাঙের মিলনমেলা। নানা রঙের ব্যাঙের ডাকে মুখরিত হয় চারদিক।

সরেজমিনে সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের পলশা গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, একটি পানিশূন্য পুকুরে বৃষ্টিতে জমে থাকা পানিতে জড়ো হয় অসংখ্য ব্যাঙ। অল্প জায়গায় রঙিন ব্যাঙেরা গ্যাঙর-গ্যাঙ শব্দে মুখরিত করে তোলে। এখনকার সময়ে গ্রামাঞ্চলে ব্যাঙের এমন দৃশ্য আর ডাকাডাকি তেমন চোখে পড়ে না। তাই ব্যাঙের মেলা আর ডাকাডাকিতে প্রকৃতির আবহমান রূপের দেখা মিলেছে।

পলশা গ্রামের বাসিন্দা তরিকুল ইসলাম বলেন, “সচরাচর এখন আর রঙিন ব্যাঙ দেখা যায় না। কিন্তু হঠাৎ বৃষ্টির পর কোথা থেকে এতো রঙিন ব্যাঙ এসেছি তা কেউই বলতে পারছে না। তবে ব্যাঙগুলো দেখতে ভালো লাগছে। পানিতে খেলা করছে, লাফিয়ে বেড়াচ্ছে, এসব দেখতে ভালোই লাগছে।”

মাধ্যমিক পড়ুয়া আশিক আলী বলেন, “গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিতে সাইকেল নিয়ে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ করেই রাস্তার পাশে দেখি অনেকগুলো ব্যাঙ গ্যাঙর-গ্যাঙ শব্দে ছুটে বেড়াচ্ছে পুকুরের মধ্যে। অল্প পানিতে পানির ওপরে এই দৃশ্য দেখে দাঁড়িয়ে গেছি, তা দেখার জন্য। এর আগে কখনও এমন দৃশ্য দেখিনি। ভালো লাগছে অনেক।”

কৃষক ইয়াসির আরাফাত বলেন, “এমন দৃশ্য আগে নিয়মিত দেখা যেত। এখন ব্যাঙই ঠিকমতো দেখা যায় না। অনেক দিন পরে ব্যাঙের মেলা আর ডাকাডাকিতে প্রকৃতির আবহমান রূপের দেখা মিলেছে।”

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল হাকিম, “আমরা কয়েকজন বৃষ্টির পানিতে জমে থাকা পতিত জমির পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলাম। এমন সময় একসঙ্গে অনেকগুলো ব্যাঙ দেখতে পাই। অল্প জায়গায় একসঙ্গে এত ব্যাঙ আগে কখনো দেখিনি। ব্যাঙের ডাক শুনে আশপাশের অনেকেই এ দৃশ্য দেখতে ভিড় জমান।”

জানা যায়, বৃষ্টির সময় ব্যাঙের প্রজনন মৌসুম। রঙিন ব্যাঙগুলোর নাম সোনা ব্যাঙ। হলুদ রঙের ব্যাঙগুলো পুরুষ আর সবুজ রঙের ব্যাঙগুলো মেয়ে ব্যাঙ। মূলত পুরুষ ব্যাঙগুলোই ডাকাডাকি করে।

 

Link copied!