• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

কঠোর লকডাউনেও চুয়াডাঙ্গায় বাড়ছে মৃত্যু ও শনাক্ত


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: জুলাই ১৬, ২০২১, ১২:২৭ এএম
কঠোর লকডাউনেও চুয়াডাঙ্গায় বাড়ছে মৃত্যু ও শনাক্ত

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে জেলা শহরসহ চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হলেও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। চলমান কঠোর বিধিনিষেধও জেলায় সংক্রমণের মাত্রা বেড়েই চলছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের এক সপ্তাহ পার হলেও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয়নি। বরং সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী রয়েছে। প্রতিদিনই রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ছে চুয়াডাঙ্গায় করোনা সংক্রমণ। 

জেলা শহরের পৌর এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, জনসাধারণের অবাধ চলাচল নিয়ন্ত্রণে শহরের কয়েকটি সড়কের প্রবেশপথে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর নজরদারীতে যান চলাচল বন্ধসহ মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে সাধারণ মানুষ বাধা উপেক্ষা করেই সংশ্লিষ্ট সড়কগুলোতে চলাচল করছে। নিয়ন্ত্রিত সড়কের ব্যারিকেড সরিয়ে চলাচল করছে মানুষ। সেই সঙ্গে বেড়েছে মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেলে যাতায়াত।

পৌর এলাকায় বেশিরভাগ মানুষকে মাস্ক ছাড়াই বাইরে বের হতে দেখা গেছে। ছোট ছোট যানবাহনগুলোতে কোনও রকম স্বাস্থ্যবিধি ছাড়াই চলছে মানুষের যাতায়াত। বাজারগুলোতে ক্রেতা ও বিক্রেতার মাঝে মাস্ক ব্যবহারে অনীহা লক্ষ্য করা গেছে। সংক্রমণের মাত্রা বাড়তে থাকার বিপরীতে মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষার প্রবণতা চলছে।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গায় বুধবার (৭ জুলাই) সন্ধ্যায় ৫১৫ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল আসে। এর মধ্যে ১৯১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। যা পরীক্ষার বিপরীতে ৩৭ শতাংশ। এছাড়াও করোনা ও উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১২৫ জন। 

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) সকালে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. এএসএম ফাতেহ আকরাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ জানান, চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ জন ও উপসর্গ নিয়ে আরও ৩ জন মারা গেছেন। উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ৩ জন চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের হলুদ জোনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। আরও একজন করোনা উপসর্গ নিয়ে নিজ বাড়িতে মারা গেছেন। 

এছাড়াও জেলায় নতুন করে ১৯১ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদরের ৭৭ জন, আলমডাঙ্গার ৩৫ জন, দামুড়হুদায় ৩১ জন ও জীবননগরের ৪৮ জন রয়েছেন।

Link copied!