• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

দেশে প্রথমবারের মতো জব্দ ভয়াবহ মাদক ডিওবি


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২১, ০৬:৩৫ পিএম
দেশে প্রথমবারের মতো জব্দ ভয়াবহ মাদক ডিওবি

দেশে প্রথমবারের মতো ভয়ংকর মাদক ডাইমিথোক্সিব্রোমোএমফিটামাইন বা ডিওবি জব্দ করেছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি)। একই সঙ্গে এই মাদক বিক্রিতে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) বিকাল চারটায় ডিএনসির ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিএনসির ঢাকা বিভাগের প্রধান অতিরিক্ত পরিচালক মো. ফজলুর রহমান।

এর আগে সোমবার (২২ নভেম্বর) দুপুরে খুলনার বয়রা মুজগন্নী এলাকায় অভিযান চালিয়ে ডিওবি বিক্রির সঙ্গে জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করে ডিএনসির ঢাকা মেট্রোর (উত্তর) একটি অভিযানিক দল। এতে নেতৃত্ব দেন প্রতিষ্ঠানটির সহকারী পরিচালক মেহেদী হাসান।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন— খুলনার বয়রা মুজগন্নী এলাকার মো. আফিস আহম্মেদ (৩১), পূজাখোলা এলাকার অর্ণব কুমার শর্মা (৩০) ও সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বয়রা শাখার ম্যানেজার মো. মামুনুর রশিদ (৩২)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৯০টি ডিওবি স্ট্রিপ ও ৫টি এলএসডি স্ট্রিপ জব্দ করা হয়, যার আনুমানিক মূল্য ১০ লাখ টাকা।

সংবাদ সম্মেলনে মো. ফজলুর রহমান জানান, বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে পাওয়া একটি কী ওয়ার্ডের মাধ্যমে অনুসন্ধানে নেমে ডিএনসি জানতে পারে দেশে একটি নতুন মাদক প্রবেশ করছে। এই মাদকের চালান ধরতে গত আগস্ট থেকে ডিএনসির কর্মকর্তারা অনুসন্ধানে নামেন। অনুসন্ধান চলাকালে তারা আইসসহ কয়েকটি চক্রকেও গ্রেপ্তার করেন। পরবর্তীকালে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কর্মকর্তারা এলএসডি ও ডিওবি বিক্রির করা এই চক্রটির সন্ধান পান।

ফজলুর রহমান আরো জানান, সন্ধান পাওয়া চক্রটির কাছ থেকে ক্রেতা সেজে এলএসডি কেনেন ডিএনসির কর্মকর্তারা। গত রোববার (২১ নভেম্বর) সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের এলিফ্যান্ট রোড শাখায় এই এলএসডি এলে সেগুলো জব্দ করেন এবং সেখান থেকেই মূল হোতার ঠিকানা পান। পরে গত সোমবার ঢাকা থেকে খুলনা গিয়ে অভিযান চালিয়ে মো. আফিস আহম্মেদ শুভকে গ্রেপ্তার করে ডিএনসির আভিযানিক দল।

ডিএনসির এই কর্মকর্তা জানান, শুভকে জিজ্ঞাসাবাদের জানা যায়, তার বন্ধু অর্ণব কুমার শর্মার বাসায় বিপুল পরিমাণ ভয়ংকর মাদক ডিওবি রয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে তার বাসায় অভিযান চালিয়ে ৯০টি ডিওবি স্ট্রিপ জব্দ করা হয় এবং তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দুইজনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের বয়রা শাখার ম্যানেজার মো. মামুনুর রশীদকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামুনের সহায়তায় তথ্য গোপন করে এসব ভয়ংকর মাদক ঢাকায় পাঠাতো শুভ ও অর্ণব। গ্রেপ্তারকৃত শুভ জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে, ডার্কওয়েবের মাধ্যমে ক্রিপ্টোকারেন্সি (বিট কয়েন) ব্যবহার করে পোল্যান্ড থেকে ১০০টি ডিওবি কেনেন তিনি। এসব মাদক পোস্ট অফিসের মাধ্যমে বাংলাদেশে আসে। পরে তারা ১০টি স্ট্রিপ বিক্রিও করেন।

ডিওবি সেবন করলে তার বৈপ্লবিক চিন্তাভাবনা জাগ্রহ হয় এবং এর মাধ্যমে পৃথিবীকে পরিবর্তন করতে চান বলে জানান তিনি।

গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে। পাশাপাশি এই চক্রের সঙ্গে আরো কোনো মাদক কারবারি জড়িত কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পরিচালক মো. ফজলুর রহমান।

Link copied!