চলচ্চিত্র উৎসবে আবারও হতে যাচ্ছে স্ক্রিনপ্লে ল্যাব


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: নভেম্বর ১৮, ২০২২, ০৩:২৯ পিএম
চলচ্চিত্র উৎসবে আবারও হতে যাচ্ছে স্ক্রিনপ্লে ল্যাব

দ্বিতীয়বারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ওয়েন্ট মিটস ইস্ট স্ক্রিনপ্লে ল্যাব। আগামী বছর আসন্ন ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের মেন্টরিং এবং পিচিং এই প্ল্যাটফর্মে এরইমধ্যে শীর্ষ ১০ অংশগ্রহণকারীদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

সমগ্র দক্ষিণ এশিয়া থেকে আসন্ন স্ক্রিনপ্লে ল্যাবের জন্য ৬২টি প্রকল্প জমা পড়ছেলি। পাঁচ সদস্যের জুরি বোর্ড এর মধ্য থেকে ১০টি প্রকল্প নির্বাচিত হয়।

জুরি বোর্ডে সদস্য হিসেবে রয়েছেন নরওয়ের হাউজসুন্ডের নরওয়ের চলচ্চিত্র প্রযোজক, প্রোগ্রাম ডিরেক্টর গাইডা ভেলভিন মাইকেলবাস্ট, ৪৭তম স্টুডেন্ট একাডেমি অ্যাওয়ার্ড ফাইনালিস্ট এবং ক্রোয়েশিয়ার চলচ্চিত্র প্রযোজক ডালিয়া অ্যালিক, বুলগেরিয়ার চিত্র পরিচালক, চিত্রনাট্যকার, সাংবাদিক ইয়ানা লেকারস্কা, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র কর্মী এবং নির্মাতা এন রাশেদ চৌধুরী আর চলচ্চিত্র নির্মাতা ও সম্পাদক সমীর আহমেদ।

নির্বাচিত ১০টি প্রকল্পের মধ্যে তিনটি বাংলাদেশের, চারটি ভারতের, দুটি শ্রীলঙ্কার এবং একটি নেপালের। বাংলাদেশের নির্বাচিত তিনটি প্রকল্প হচ্ছে আফরোজা হোসেনের “ঝিনুকের গান”, জায়েদ সিদ্দিকীর “ন্যাক্রোফিল” এবং  লাবনী আশরাফির “ভুলে যাওয়া স্বপ্নের রূপকথা”।

চারটি দেশের নির্বাচিত এই ১০টি প্রকল্প স্ক্রিনপ্লে ল্যাবে অংশ নিতে যাচ্ছে এবং দক্ষিণ এশিয়ার ফিল্ম মার্কেট, ফিল্ম হাট-এও সেগুলো উপস্থাপিত হবে। অর্থায়নের সুযোগের পাশাপাশি প্রযোজক এবং পরামর্শদাতাদের কাছে নিজেদের ধারণাগুলো বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে পরামর্শও পাবে প্রকল্পগুলো।

নির্বাচিত ১০টি প্রকল্পের মধ্যে শীর্ষ ৩টি প্রকল্প নগদ পুরস্কার পাবে। প্রথম স্থান অধিকারী প্রকল্প পাবে পাঁচ হাজার মার্কিন ডলার। অন্যদিকে, প্রথম রানারআপ পাবে তিন হাজার মার্কিন ডলার। এছাড়া, দ্বিতীয় রানারআপ পাবে দুই হাজার মার্কিন ডলার।

২০২১ সালে এ আয়োজনে প্রথম স্থান অধিকার করেছিল নেপালের কিরণ পোখরের “পুতালি কো স্বপ্ন”। দ্বিতীয় স্থানে ছিল বাংলাদেশের তাসমিয়া আফরিন মৌ-এর “ফিয়ার-ই-টেল”। অন্যদিকে, তৃতীয় পুরস্কার পায় ভারতের গৌরব মদনের “কান্দা ভান্দা”।

ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের পরিচালক আহমেদ মুজতবা জামাল সংবাদ প্রকাশকে বলেন, “তরুণ, বিশেষ করে যারা স্বাধীনভাবে চলচ্চিত্র নির্মান করেন তাদের জন্য এই স্ক্রিনপ্লে ল্যাবটি গুরুত্বপূর্ণ প্ল্যাটফর্ম। এর মাধ্যমে সারা বিশ্বের আন্তর্জাতিক প্রযোজক এবং চলচ্চিত্রের পেশাদার ব্যক্তিদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান তরুণ নির্মাতারা।”

২০২৩ সালের ১৪-২২ জানুয়ারি পর্যন্ত ২১তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। উৎসব চলাকালে আগামী ১৫-১৮ জানুয়ারি ওয়েস্ট মিট ইস্ট স্ক্রিনপ্লে ল্যাব অনুষ্ঠিত হবে। এই ল্যাবের কো-কনভেনর হিসেবে আছেন চলচ্চিত্র নির্মাতা আকা রেজা গালিব ও সাংবাদিক সাদিয়া খালিদ ঋতি। 

১৯৯২ সাল থেকে “নান্দনিক চলচ্চিত্র, মননশীল দর্শক, আলোকিত সমাজ” স্লোগানকে সামনে রেখে, নিয়মিত চলচ্চিত্র উৎসবের আয়োজন করে আসছে রেইনবো ফিল্ম সোসাইটি। এই সোসাইটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৭৭ সালে।

Link copied!