• ঢাকা
  • শনিবার, ২২ জুন, ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১, ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: নভেম্বর ২৯, ২০২১, ০৫:১৬ পিএম
ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস
ছবি: সংগৃহীত

ভারতের সংসদের শীতকালীন অধিবেশন শুরু হয়েছে। শীতকালীন অধিবেশনের প্রথমদিনই কৃষি আইন নিয়ে আলোচনার দাবি তোলেন বিরোধীরা। সরকার পক্ষ সেই দাবি না মানায় শুরু হয় হট্টগোল। শেষ পর্যন্ত লোকসভা ও রাজ্যসভার অধিবেশন বেলা ১২টা পর্যন্ত মুলতুবি করে দিতে হয় স্পিকারকে। 

সোমবার (২৯ অক্টোবর) এ অধিবেশন শুরু হয়। এ খবর জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি।

জানা গেছে, শীতকালীন এ অধিবেশন আজ থেকে ২৫ দিন চলবে। শুরুতেই বিতর্কিত কৃষি আইন নিয়ে সংসদে স্লোগান শুরু হয়। ফলে সংসদের অধিবেশন মুলতবি করতে বাধ্য হন স্পিকার। মুলতবির আধঘণ্টা পর আবার অধিবেশন শুরু হয়। বিক্ষোভের মুখে মাত্র ৪ মিনিটের মধ্যে বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিল বিল সংসদে পাস হয়ে যায়।

এ আইন বাতিল বিল সংসদে পেশ করেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর। বিল উপস্থাপন উপলক্ষে সংসদের আজকের অধিবেশনে নিজ নিজ দলের সব সদস্যকে উপস্থিত থাকতে বলেছিল ক্ষমতাসীন বিজেপি ও বিরোধী দল কংগ্রেস।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সংসদে জানান, তারা সরকার বিরোধীদের সব প্রশ্নের উত্তর দিতে প্রস্তুত। সরকারের নীতি নিয়ে কারও বিরোধিতা থাকলেও সংসদ ও স্পিকারের চেয়ারের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে।

শীতকালীন এ অধিবেশনের আগে রোববার সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছিল ভারত সরকার। অধিবেশনের প্রথম দিন কৃষি আইন বাতিল বিল উত্থাপন করা হবে বলেই বৈঠক ডাকা হয়েছিল। শীতকালীন এ অধিবেশনে ৩০টির বেশি বিল পাস হতে পারে। বৈঠকে দেশটির রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফলে বৈঠক ডেকে অনুপস্থিত থাকায় মোদির সমালোচনা করেন বিরোধীরা।

এর আগে বিতর্কিত তিন কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে গত দেড় বছর ধরে ভারতের কৃষকেরা আন্দোলন করে আসছিলেন। এ আন্দোলনের কাছে নতি স্বীকার করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ১৯ নভেম্বর তিন আইনই প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। পরে ২৪ নভেম্বর কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল অনুমোদন দেয়।

অন্যদিকে যে কৃষি আইন কার্যকর করা নিয়ে অনড় ছিল ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার। সেই অবস্থান থেকে সরে এলো তারা।
 

Link copied!