• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

চিরকুটে ‘স্বেচ্ছায় মৃত্যু’ লিখে রাবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা


রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশিত: জুন ৯, ২০২৩, ০৮:৩০ এএম
চিরকুটে ‘স্বেচ্ছায় মৃত্যু’ লিখে রাবি শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

চিরকুটে ‘স্বেচ্ছায় মৃত্যু’ লিখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন মো. তানভীর ইসলাম নামের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) এক শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার (৮ জুন) রাতে ক্যাম্পাসসংলগ্ন বিনোদপুর এলাকার ক্ষণিকা ছাত্রাবাসের বিপরীতে স্টুডেন্ট প্যালেস মেসে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আসাবুল হক।

মো. তানভীর ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি নীলফামারী জেলার সদর থানার কাঞ্চন পাড়ার আবু বকর সিদ্দিকের ছেলে।

তার কক্ষে পাওয়া চিরকুটে লেখা ছিল, “প্রিয় বাবা-মা আপনাদের অনেক ভালোবাসি। জানি না কোথায় কমতি ছিল। আম্মুর জন্য বেশি খারাপ লাগতিছে। আমাদের ফ্যামিলিটায় আম্মুর অবদানই বেশি বলে আমি মনে করি। কথাটা বলার অনেক কারণ আছে সেটা আব্বু জানে। তোমাদের জন্য কিছু করতে তো পারলামই না, উল্টো ফ্যামিলিটাকে শেষ করলাম। ছোট বোনটার কথা আর বললাম না। কান্না পাচ্ছে...দিনের পর দিন আপনাদের ঠকায়ে গেছি। এসব আপনারা জানতে পারলে হয়তো ভিতর থেকেই মরে যেতেন। সব সময় ভয়ে ভয়ে থাকতাম গলা দিয়ে খাবার নামতো না। শেষ করলাম সবকিছু। এসব কিছু থেকে বাঁচার জন্য এই সিদ্ধান্ত, আর কোনো উপায় ছিল না আমার কাছে। শেষমেশ একাকিত্ব আমাকে গিলে খেলো। মনের শক্তি ফুরিয়ে এলে দেহের শক্তি যতই থাকে সম্ভব না বাঁচা। যদিও ক্ষমার যোগ্য না আমি, পারলে ক্ষমা করে দিয়েন। আপনাদের অযোগ্য সন্তান।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. আসাবুল হক বলেন, “আমরা দড়ি দিয়ে ফ্যানের মধ্যে ঝুলন্ত অবস্থায় তাকে পেয়েছি। পরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। আত্মহত্যা করার আগে নিহত শিক্ষার্থী একটি সুইসাইড নোট লিখে যান। যেখানে আসলে কাউকে দোষারোপ না করে স্বেচ্ছায় আত্মহত্যা করেছেন বলে লেখা রয়েছে।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মতিহার থানার পরিদর্শক মো. রুহুল আমিন বলেন, “আমি বিষয়টি অবগত আছি এবং মেডিকেলেও গিয়েছিলাম। এখনো আমরা মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানতে পারিনি। সঠিক কারণ জেনে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

শিক্ষা বিভাগের আরো খবর

Link copied!