• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১, ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

ড. ইউনূসের বিচার স্থগিত চাওয়ায় নোবিপ্রবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ


নোবিপ্রবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৮, ২০২৩, ০৪:০৮ পিএম
ড. ইউনূসের বিচার স্থগিত চাওয়ায় নোবিপ্রবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ

ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে চলমান বিচারিক প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ চেষ্টার প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়েছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (নোবিপ্রবি) নীল দলের ২৫৬ জন শিক্ষক।

বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) নীল দলের সভাপতি ড. এমডি মাসুদ রহমান ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন স্বাক্ষরিত এক যৌথ বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ড. মুহাম্মাদ ইউনুসের বিরুদ্ধে শ্রমআইনে চলমান মামলাটি স্থগিত চেয়ে কতিপয় নোবেলজয়ী, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ীসহ বহিরাষ্ট্রীয় ১৬০ জন ব্যক্তি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একটি অযাচিত খোলা চিঠি দিয়েছেন। এ ঘটনায় গভীর শঙ্কা ও উদ্বেগ প্রকাশ করছে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নীলদল।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, বাংলাদেশের সংবিধানের ২২ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, বাংলাদেশের বিচার বিভাগ নির্বাহী বিভাগ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা ও স্বাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। যেখানে বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে তার সমস্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে। বাংলাদেশে আইনের শাসন বিদ্যমান এবং আইন সবার জন্য সমান হওয়ায় এখানে দেশীয় বা বহিরাষ্ট্রীয় কারও হস্তক্ষেপ করার সুযোগ নাই। অতএব ড. ইউনুসের বিরুদ্ধে চলমান মামলার বিষয়ে অযাচিত ও অপ্রয়োজনীয় বিবৃতি বা চিঠি প্রদান করা বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থার ওপর অসাংবিধানিক হস্তক্ষেপ বলে পরিলক্ষিত হয়। সেই সঙ্গে উক্ত বিবৃতি আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থা এবং বাংলাদেশের শ্রম আইনে প্রদত্ত শ্রমিকদের অধিকার সংক্রান্ত বিধানবলীর সম্পূর্ণ পরিপন্থী। ড. ইউনুসের ব্যক্তিস্বার্থ রক্ষা করতে গিয়ে শ্রমিকদের স্বার্থের বিরুদ্ধে এ ধরনের বিবৃতি অত্যন্ত অমানবিক।

বিবৃতিতে শিক্ষকরা বলেন, এছাড়াও উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষণীয় যে উক্ত বিবৃতিতে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশের গণতন্ত্র, রাজনীতি ও নির্বাচন সংক্রান্ত বিরূপ মন্তব্যও করা হয়েছে। যা একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রের ওপর সরাসরি হস্তক্ষেপের শামিল। লাখো শহীদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশের আপামর জনসাধারণ এই ধরনের অযাচিত, অবমাননাকর ও বেআইনি হস্তক্ষেপের প্রচেষ্টাকে নিন্দাভাবে প্রত্যাখ্যান করে।

সবশেষে নীলদলের শিক্ষকরা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের সুনাম ও সমৃদ্ধি যখন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে তখন এ কথা স্পষ্টই প্রতীয়মান যে উক্ত বিবৃতি দেশের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ও রাজনৈতিক দুরভিসন্ধিমূলক। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নীলদল এই ১৬০ কর্তাব্যক্তির বিবৃতির প্রতিবাদ ও প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছে।

Link copied!