• ঢাকা
  • রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৪ শা’বান ১৪৪৫

সুপার ক্লাসিকোতে ব্রাজিল সমর্থকদের থুতু দিয়েছিলেন দি মারিয়া


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২৩, ০৩:৫৪ পিএম
সুপার ক্লাসিকোতে ব্রাজিল সমর্থকদের থুতু দিয়েছিলেন দি মারিয়া
আর্জেন্টাইন ফুটবলার আনহেল দি মারিয়া। ছবি: সংগৃহীত

ফুটবল বিশ্ব সবচেয়ে রোমাঞ্চকর ও উত্তপ্তকর ম্যাচ মানেই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল আর্জেন্টিনার লড়াই। এই দুই দলের ম্যাচ মানেই খেলোয়াড় থেকে সমর্থকদের মাঝে বাড়তি উন্মাদনা। সুপার ক্লাসিকোর সেই উত্তপ্ততা আগের ম্যাচগুলোকেও ছাড়িয়ে গেছে গত ২২ নভেম্বরের ম্যাচে। ম্যাচ শুরু আগে গ্যালারিতে সমর্থকের মারামারিতে নির্দিষ্ট সময়ের ২৭ মিনিট পর খেলা শুরু হয়। এরপর ম্যাচ শুরু হলে দুই দলের খেলোয়াড়রা মাঠে গায়ের শক্তি প্রদর্শনে ব্যস্ত হয়ে ওঠেন। ব্রাজিলের ২৬ আর আর্জেন্টিনার ১৬ ফাউলের ম্যাচ শেষ হয়। তবে সবকিছু ছাপিয়ে এদিন আলবিসেলেস্তেরা ১-০ গোলের জয় তুলে নেয়।

গত সুপার ক্লাসিকোতে গ্যালারিতে সমর্থদের মারামারির সময় আর্জেন্টাইন সমর্থকদের ওপর ব্রাজিল পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এই নিয়ে ইতোমধ্যেই সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে বিশ্ব ফুটবলে। এই ঘটনার জন্য তদন্তে নামছে ফিফা। এই উত্তপ্তকর ম্যাচ তিন দিন আগে শেষ হলেও এর উত্তপ্ততা এখনো কমেনি। নতুন বিতর্ক সামনে এসেছে এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও নিয়ে। যেখানে দেখা গেছে, মাঠ ছেড়ে ড্রেসিংরুমে যাওয়ার সময় টানেলে ব্রাজিলের সমর্থকদের লক্ষ্য করে থুতু মেরেছেন আর্জেন্টাইন ফুটবলার আনহেল দি মারিয়া।

দি মারিয়া থুতু মারার আগে ব্রাজিলিয়ান সমর্থকরা তাকে উত্ত্যক্ত করেন। টানেল দিয়ে ড্রেসিংরুমে যাওয়ার সময় তাকে উদ্দেশ করে বিয়ার ছুড়ে মারেন স্বাগতিক দেশটির এক সমর্থক। ডি মারিয়া কিছুটা সরে গিয়ে নিজেকে রক্ষা করার পর আবার ফিরে এসে থুতু মেরেছেন।

মারাকানা স্টেডিয়ামের এই রণক্ষেত্রের ঘটনায় দোষী প্রমাণিত হলে বড় শাস্তির সম্মুখীন হতে পারে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের। এক্ষেত্রে আর্থিক জরিমানা অথবা পয়েন্ট কাটার মতো শাস্তিও পেতে পারে দেশটি। এমনটা যদি হয় তাহলে ব্রাজিল বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বড় একটা ধাক্কার মুখে পড়তে চলেছে। কারণ বাছাইপর্বে সেলেসাওরা সবশেষ তিন ম্যাচে হেরে তেমন সুবিধাজনক অবস্থানে নেই। ৬ ম্যাচে মাত্র দুই জয়ে তারা টেবিলের ছয়ে অবস্থান করছে।

এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো বুধবার (২২ নভেম্বর) নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে বলেন, “ফুটবল মাঠে বা মাঠের বাইরের এই ধরনের সহিংসতার কোনো স্থান নেই। খেলোয়াড়, সমর্থক, প্রতিযোগিতায় লিপ্ত দলগুলো এবং তাদের কর্মকর্তারা একটি নিরাপদ পরিবেশের দাবিদার।”

Link copied!