• ঢাকা
  • রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১,
শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানাল বাংলাদেশ

পেঁয়াজ নিয়ে পূর্বের প্রতিশ্রুতি রাখেনি ভারত


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ২৭, ২০২৩, ০৭:০৯ পিএম
পেঁয়াজ নিয়ে পূর্বের প্রতিশ্রুতি রাখেনি ভারত
ফাইল ছবি

মাত্র কয়েক ঘণ্টার নোটিশে গত বছর বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত। ঠিক সেই সময় দুই দেশ আলোচনা করে ঠিক করে, যেসব নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী বাংলাদেশ আমদানি করে, সেগুলো রপ্তানিতে নিয়ন্ত্রণ আরোপ হলেও বাংলাদেশের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হবে। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতি রাখেনি ভারত। উল্টো উৎপাদন কম আর বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখার অজুহাতে নতুন করে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করে বসে দেশটি।

শনিবার (২৬ আগস্ট) ভারতের রাজস্থানের জয়পুরে জি ২০-এর বাণিজ্যমন্ত্রীদের সম্মেলনে বাংলাদেশ ও ভারতের দুই মন্ত্রীর দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। এ সময় বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সি ‘ভারতের রপ্তানিকৃত পেঁয়াজে শুল্ক’ কমানোর দাবি জানান।

জানা যায়, গত বছর কয়েক ঘণ্টার নোটিশে ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিলে বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। দেশে পেঁয়াজের মোট চাহিদার প্রায় ৪৫ শতাংশই ভারত থেকে আমদানি করতে হয় বাংলাদেশকে। সেসময় দুই দেশ আলোচনা করে ঠিক করে, যেসব নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বাংলাদেশ আমদানি করে, সেগুলো রপ্তানিতে নিয়ন্ত্রণ আরোপ হলেও বাংলাদেশের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করা হবে। 

একইভাবে ভুটানের জন্য ইতোমধ্যেই এমন ছাড়ের ব্যবস্থা রেখেছে ভারত। ঠিক হয় কোন কোন পণ্য এই তালিকায় থাকবে এবং কীভাবে নিষেধাজ্ঞা থেকে ছাড় দেবে ভারত। সেসব বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনা করে ঠিক করা হবে। কিন্তু তার আগেই হঠাৎ করে গত সপ্তাহে পেঁয়াজের ওপর ৪০ শতাংশ রপ্তানি শুল্ক আরোপ করে দিল্লি। ভারত সরকার ঘোষণা করেছে, ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই শুল্ক আরোপিত থাকবে। 

ভারতের এমন প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের কারণে বাংলাদেশের পেঁয়াজের বাজারে দেখা দেয় অস্থিরতা। সুযোগ নেয় এ দেশের সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরাও। পেঁয়াজ নিয়ে চরম বেকায়দায় পড়ে বাংলাদেশ। 

ডিসেম্বর বা জানুয়ারিতে দেশে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই সময়ে মূল্যবৃদ্ধি একটি প্রধান বিষয় বলে চিহ্নিত করেছে ক্ষমতাসীন দল। পেঁয়াজের ওপরে ভারতের রপ্তানি শুল্ক আরোপের কারণে দেশের বাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে পণ্যটির দাম। 

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে জানান, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বাংলাদেশে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীগুলো অবাধে রপ্তানির বিষয়ে ভারত যেন দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়। বাংলাদেশে রপ্তানির ক্ষেত্রে পেঁয়াজের ওপর শুল্ক প্রত্যাহারের দাবিও জানান তিনি।

ওই বৈঠকে ভারতের শিল্প ও বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল বলেন, “যুদ্ধ পরিস্থিতিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম স্থিতিশীল রাখতে ভারতকেও সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। তবে বাংলাদেশকে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অবশ্যই পালন করা হবে। আবহাওয়ার কারণে পেঁয়াজ চাষ ভাল হয়নি এবার। রপ্তানিতে লাগাম পরিয়ে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতেই কিছু ব্যবস্থা নিতে হয়েছে। তবে বাংলাদেশের উদ্বেগের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।” 

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

Link copied!