• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

জন্মদিনে নায়ক জসিমকে স্মরণ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ১৪, ২০২১, ১২:০৯ পিএম
জন্মদিনে নায়ক জসিমকে স্মরণ

ঢাকাই সিনেমার দাপুটে অভিনেতা জসিমের আজ জন্মদিন। এই জন্মদিনে তাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছে তার ভক্তরা।

১৯৫০ সালের ১৪ আগস্টের এই দিনে ঢাকার কেরানীগঞ্জের বক্সনগর গ্রামে জন্ম নেন এই নায়ক। নিজের অভিনয় দক্ষতায় লাখো ভক্তের মন জয় করেছেন। অভিনয় দাপুটে সত্তর দশকের সিনেমার প্রথম সারির জায়গা দখলে নিয়েছিলেন এই চিত্রনায়ক।

প্রতিবছর এই নায়কের জন্মবার্ষিকী নীরবেই কেটে যায়। পরিবারের কিছু আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়েই কেটে যায় দিনটি। এবারও তাই। ঘরোয়াভাবেই এই অভিনেতার জন্মদিনটি উদযাপন করবে তার পরিবার।

জসিমের পুরো নাম আবুল খায়ের জসিম উদ্দিন। তিনি একই সঙ্গে অভিনেতা, অ্যাকশন ডিরেক্টর, প্রযোজক, পরিবেশক ছিলেন।

১৯৯৮ সালের ৮ অক্টোবর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে নেন এই অভিনেতা। নীরবেই তার প্রস্থান হয়। তিন ছেলে রাতুল, সামী ও রাহুলকে রেখে গেছেন। সন্তানদের এখনো আগলে রেখেছেন তার স্ত্রী নাসরিন জসিম। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধেও তিনি অংশ নিয়েছিলেন।

রাজধানীর বিএফডিসিতে এই নায়কের নাম অনুসারে ‘মুক্তিযোদ্ধা চিত্রনায়ক জসিম ফ্লোর’ নির্মাণ হয়েছে। যার মাধ্যমে সিনেমা পাড়ায় এই নায়ককে স্মরণীয় করে রেখেছেন তার সহকর্মীরা।  

ঢাকাই সিনেমার মহানায়ক জসিমের প্রথম চলচ্চিত্র মুক্তি পায় ১৯৭২ সালে। ‘দেবর’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার চলচ্চিত্রে পা রাখা। এরপর দেওয়ান নজরুলের ‘দোস্ত দুশমন’ চলচ্চিত্রে খলনায়ক হিসেবে অভিনয় করেন। এই ছবিকে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান তিনি। নায়ক হিসেবে তার প্রথম ছবি ‘মোকাবেলা’। অ্যাকশন ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছে ‘রংবাজ’ ছবিতে।

জসিম পড়াশোনা করেছেন বিএ অনার্স। অভিনেত্রী সুচরিতা তার প্রথম স্ত্রী। তবে সেই সম্পর্ক বেশি দিন গড়ায়নি। এরপর নাসরিনের সঙ্গে ঘর বাঁধেন এই অভিনেতা। নাসরিন আশি-নব্বই দশকের জনপ্রিয় নায়িকা ছিলেন। বাংলাদেশের প্রথম চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’-এর নায়িকা পূর্ণিমা সেনগুপ্তার মেয়ে নাসরিন।

একে একে  ‘রংবাজ’,  ‘বারুদ’, ‘বদলা’, ‘কসাই’, ‘দোস্তী’,  ‘প্রতিহিংসা’, ‘মান-সম্মান’ মহেশখালির বাঁকে, হুর-এ-আরব, বারুদ, বদলা, কসাই, বাহাদুর, এক মুঠো ভাত, নবাবজাদী, সেলিম জাভেদ, বেদীন, সুন্দরী, জদুলারী, আসামী হাজির, বাঁধনহারা, দোস্তী, ওস্তাদ সাগরেদ, প্রতিহিংসা, মান-সম্মান, চ্যালেঞ্জ, নাজমা, গাদ্দার, সবুজ সাথী, সিআইডি, লাভ ইন সিঙ্গাপুর, অভিযান, আক্রোশ, মোহাম্মদ আলী, সালতানাৎ, অশান্তি, বিচার, সোনার হরিণ, দুই রাজকুমার, দাতা হাতেম তাই, আল হেলাল, দি রেইন, কুয়াশা, প্রতিজ্ঞা, নওজোয়ান, শাহজাদা, বিজয়িনী সোনাভান, বাগদাদের চোর, যুবরাজ, আলী আসমা, মাসুদ রানা, এপার-ওপার, হাসান তারেক, মাই লাভ, কোরবানী, অ্যাকসিডেন্ট, মুজাহিদ, অগ্নিতুফান, অগ্নিপুরুষ, হিম্মতওয়ালী, বিধান, কালাখুন, নাগরাণী, যাদুনগর, হালচাল, রাজমাতা, নিশানা, নিষ্পাপ, নিঃস্বার্থ, নিষ্ঠুর, স্বামীর আদেশ, নেপালি মেয়ে, সুখশান্তি, আদিল, দরদী শত্রু, দুই রংবাজ, প্রেম লড়াই, হিরো, শত্রুতা, ভাই আমার ভাই, ভরসা, ন্যায় অন্যায়, দাগী সন্তান, ধনবান, অবদান, মাস্তান রাজা, সারেন্ডার, স্বামী কেন আসামী, মেয়েরাও মানুষ, ভালোবাসার ঘর, ঘাত-প্রতিঘাত, পরাধীন, লাট সাহেব, ভাইজান, কালিয়া, আশিক প্রিয়া, রাজা গুণ্ডা, জালিমের দুশমন, সাহস, হাবিলদার, বিজয়, ছোট বউ, জিদ্দি, জোর, আখেরি মোকাবেলা, ওমর আকবর, রক্তের বদলা, চিরশত্রু, লক্ষ্মীর সংসার, লালু মাস্তান, ধন দৌলত, গর্জন, স্ত্রী হত্যা, টাইগার, কাজের বেটি রহিমা, বাংলার নায়ক, হিংসা, গরিবের ওস্তাদ, রকি, বিশ্বনেত্রী ছবিতে অভিনয় করে দর্শক মনে নিজের অবস্থান পোক্ত করে নিয়েছেন চিত্রনায়ক জসিম।

বাবা জসিমের মতো তার ৩ ছেলের কেউ সিনেমায় নাম লেখেননি। সঙ্গীতেই তাদের আগ্রহ। তার ছেলে সামী ‘ওন্ড’ ব্যান্ডের সঙ্গে রয়েছেন। ব্যান্ড দলটির প্রথম অ্যালবাম ‘ওয়ান’। দ্বিতীয় অ্যালবাম ‘টু’ প্রকাশ হয় ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে। রক মেটাল ধাঁচের এই ব্যান্ডে জসিমের বড় ছেলে সামী ড্রামার ও মেঝ ছেলে রাতুল ভোকালিস্ট, বেজ গিটারিস্ট হয়ে আছেন। ব্যান্ড দলটির নেতৃত্বে রয়েছেন সামী।

জসিমের ছেলে সামী বলেন, “ বাবা চলে যাওয়ার ২০ বছর। বাবার জন্মদিন ঘরোয়াভাবেই পালন করি। এই দিনে বাবা স্মৃতিগুলো আরও বেশি মনে পড়ে। মাকে নিয়ে এই দিনটিতে বাবাকে স্মরণ করি। বাবার স্মৃতি নিয়ে বেঁচে থাকাই এখন সম্বল।”

Link copied!