• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

জবিতে বিবাহিত-অন্তঃসত্ত্বাদের হল ছাড়ার নির্দেশ


জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২৩, ১০:২০ এএম
জবিতে বিবাহিত-অন্তঃসত্ত্বাদের হল ছাড়ার নির্দেশ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে অবস্থানরত বিবাহিত ও অন্তঃসত্ত্বা ছাত্রীদের অতিদ্রুত হল ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে হল প্রশাসন। একই সঙ্গে মাস্টার্সের ফল প্রকাশ হওয়া আবাসিক ছাত্রীদেরও হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ছাত্রী হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার বিবাহিত, অন্তঃসত্ত্বা ও স্নাতকোত্তর ছাত্রীদের হল ছাড়ার নির্দেশনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ব্যাপারে তার স্বাক্ষরিত একটি বিজ্ঞপ্তিও জারি করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হলের আবাসিকতা লাভ, বসবাসের শর্তাবলি এবং আচরণ ও শৃঙ্খলাসংক্রান্ত বিধিমালা ২০২১-এর ১৭ নম্বর ধারা অনুযায়ী বিবাহিত ও অন্তঃসত্ত্বা ছাত্রীরা হলে সিট পাবেন না। তারা অতিদ্রুত হলের সিট ছেড়ে দেবেন। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ছাড়া হলের যেসব ছাত্রীর স্নাতকোত্তরের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে, তাদেরও অতিদ্রুত হল ছাড়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি কোনো মানোন্নয়ন (মাস্টার্স) পরীক্ষার্থী বা এমফিলে অধ্যয়নরত ছাত্রী হলে থাকতে পারবেন না বলেও বিজ্ঞপ্তিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হলের ছাত্রীরা। তারা বলছেন, বিবাহিত হলেও তো সবার পরিবার ঢাকায় থাকে না। এ ক্ষেত্রে তাদের জন্য হলই নিরাপদ। এভাবে নোটিশ দিয়ে নামিয়ে দেওয়ার কোনো যৌক্তিক কারণ নেই।

এ বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. দীপিকা রাণী সরকার বলেন, “হলের বিধিমালার ১৭ নম্বর ধারা অনুযায়ী কোনো বিবাহিত ছাত্রী হলে সিটের আবেদন কর‍তে পারবেন না। আমরা বিধি অনুযায়ী এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

ড. দীপিকা রাণী সরকার আরও বলেন, “আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক ছাত্রী আছেন, যাদের হলে সিট বেশি প্রয়োজন। অনেকের মা-বাবা নেই, অনেকের পরিবার একেবারেই নিম্নবিত্ত। হলে সিট পেলে তাদের পড়াশোনা চালিয়ে যেতে সুবিধা হবে। কিন্তু অনেক বিবাহিত মেয়ে আছে যাদের খরচ বহন করার মতো সামর্থ্য পরিবারের আছে। তারা বাইরেও থাকতে পারবে। তাদের হল ছাড়তে সময়ের প্রয়োজন হলে আমরা বিষয়টি বিবেচনা করব।”

এর আগে ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৫তম সিন্ডিকেটে হলের নীতিমালা পাস করা হয়। ১৩ তলাবিশিষ্ট হলটির ১৫৬টি কক্ষে মোট ১ হাজার ২০০ ছাত্রীকে সিট বরাদ্দ দেওয়া হবে।

Link copied!