• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ জুন, ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১, ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

খুনি আমানুল্লাহর আড়ালে চরমপন্থি শিমুল


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: মে ২৩, ২০২৪, ০৬:১৭ পিএম
খুনি আমানুল্লাহর আড়ালে চরমপন্থি শিমুল
শিমুল ভুঁইয়া ‍ওরফে সৈয়দ আমানুল্লাহ। ছবি: সংগৃহীত

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার মূল দায়িত্ব পেয়েছিলেন সৈয়দ আমানুল্লাহ। পাসপোর্ট বানিয়েছিলেন আমানুল্লাহ নামেই। যে পাসপোর্টে কলকাতায় গিয়েছিলেন হত্যা মিশনে অংশ নিতে। মিশন শেষে ঢাকায় ফিরে আসার পর পুলিশের হাতে আটকও হয়েছেন।

তবে ধরা পড়ার পরই আমানুল্লাহর প্রকৃত পরিচয় বেরিয়ে আসে। তদন্তে বেরিয়ে এসেছে, খুলনা অঞ্চলের কুখ্যাত সন্ত্রাসী চরমপন্থী সংগঠন পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির অন্যতম শীর্ষ নেতা শিমুল ভূঁইয়া নিজেকে সৈয়দ আমানুল্লাহ নামে পরিচয় দিয়েছেন।

২০১৯ সালের ১০ অক্টোবর ঢাকা থেকে আমানুল্লাহ নামে পাসপোর্ট করেছেন। একই নামে জাতীয় পরিচয়পত্রও (এনআইডি) তৈরি করিয়েছেন শিমুল। তবে কীভাবে শিমুল ভূঁইয়া ভুয়া পাসপোর্ট ও এনআইডি তৈরি করে কাগজ কলমে আমানুল্লাহ হলেন, সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন গোয়েন্দারা।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ ও অন্যান্য সূত্রমতে, এমপি আনোয়ারুল আজিমকে হত্যার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রধান ভূমিকা পালন করে সৈয়দ আমানুল্লাহ নামে পরিচয় দেয়া শিমুল ভূঁইয়া। তার গ্রামের বাড়ি খুলনার ফুলতলার দামোদর ইউনিয়নে।

কলকাতার নিউ টাউনের ভাড়া করা ফ্ল্যাটে গত ১৩ মে এমপি আজিমকে খুন করে দুইদিন পর ১৫ মে দেশে ফেরেন শিমুল ভূঁইয়া। পরে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেন, এমপি আজিমকে তারা খুন করেছেন।

সেই খুনের জন্য এমপির বন্ধু যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক আক্তারুজ্জামান ওরফে শাহিনের সঙ্গে তার পাঁচ কোটি টাকার চুক্তি হয়। এমপি আজিমের সঙ্গে শাহিনের সোনা চোরাচালান ও হুন্ডির ব্যবসা নিয়ে দ্বন্দ্ব ছিল বলে তথ্য পায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

পুলিশের তথ্যমতে, আমানুল্লাহ নামধারী শিমুল ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে খুনসহ অন্তত দুই ডজন মামলা আছে। গণেশ নামের এক ব্যক্তিকে খুন করে সাত বছর (১৯৯১-৯৭) জেল খাটেন। ইমান আলী নামের এক ব্যক্তিকে খুনের ঘটনায় ২০০০ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত জেল খাটেন।

প্রসঙ্গত, এমপি আনোয়ারুল আজীম গত ১২ মে ভারতের কলকাতায় গিয়ে তার ২৫ বছরের পারিবারিক সম্পর্কের বন্ধু গোপাল বিশ্বাসের বাসায় ওঠেন সন্ধ্যা ৭টার দিকে। পরদিন ১৩ মে বেলা ২টার দিকে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কথা বলে গোপালের বাসা থেকে বের হন। সন্ধ্যায় বাসায় ফেরার কথা বলে যান।

তবে সেদিন থেকে বাসায় না ফেরায় ১৮ মে কলকাতার বরাহনগর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন গোপাল বিশ্বাস। এরপর ২২ মে এমপি আনোয়ারুল আজীম ভারতে খুন হয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশিরাই হত্যা করেছে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এ ঘটনায় ইতিমধ্যে তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

Link copied!