• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১,
পঞ্চগড়ে নৌকাডুবির এক বছর

‘কোনো প্রতিশ্রুতি নয়, এখানে একটা ব্রিজ দেখতে চাই’


পঞ্চগড় প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২৩, ১১:২৩ এএম
‘কোনো প্রতিশ্রুতি নয়, এখানে একটা ব্রিজ দেখতে চাই’

প্রতিবছরের মতো দুর্গোৎসবের ৫ দিন আগে মহালয়া উৎসব উপলক্ষে ধর্মসভার আয়োজন ছিল। আর এ উৎসবের মাধ্যমে সনাতন ধর্মালম্বীদের ভক্তির পাশাপাশি করতোয়া নদীতে নিজে পাপ বিসর্জন দেওয়ার কথা ছিল। তবে পাপ বিসর্জন দেওয়ার আগেই নৌকা ডুবে ৭২ জনের মৃত্যু হয়।

গত এক বছর আগে আজকের এই দিনে (২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২) দেশের উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার মাড়েয়া বামনহাট করতোয়া নদীর আউলিয়াঘাটে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

করতোয়া নদীর আউলিয়া ঘাটে ইঞ্জিন চালিত ছোট নৌকায় অতিরিক্ত লোক ওঠায় কিছুদূর যেতেই নৌকাটি নদীর মোহনায় তলিয়ে যায়। এ সময় নদীর উভয় পাড়ে কয়েকশ মানুষ পারাপারের অপেক্ষায় ছিল। সবার চোখের সামনেই দুর্ঘটনায় পড়ে যাত্রীরা। একমাত্র বাহন নৌকায় পার হতে গিয়ে পানিতে ডুবে প্রাণ হারান ৭২ জন। এর মধ্যে সুরেন্দ্রনাথ নামের একজনের মরদেহ এখনো খুঁজে পাওয়া যায়নি।

স্মরণকালের ভয়াবহ নৌ-দুর্ঘটনার সাক্ষী হয়েছে পঞ্চগড়বাসীসহ সারা দেশ। মর্মান্তিক নৌকাডুবি ঘটনার বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো সেতুর দেখা পাননি স্থানীয়রা। 

মর্মান্তিক নৌকাডুবি ঘটনায় পরিবারের ছয়জন হারিয়ে জবা রানি (৪৫) বলেন, “আর কোনো প্রতিশ্রুতি নয়, আমরা এখানে একটা ব্রিজ দেখতে চাই। আমার পরিবারের ছয়জনকে হারিয়েছি। যদি ব্রিজ থাকত, তাহলে হয়তো পরিবারের ছয়জনকে হারাতে হতো না। ব্রিজের অভাবে আর যেন কেউ হারিয়ে না যায়।”

অন্যদিকে ১৩ মাসের সন্তানকে নিয়ে দিশাহারা ভৈরবী রানী (২৫)। সেদিনের মর্মান্তিক নৌকাডুবিতে তার স্বামীও মৃত্যুবরণ করেন। ভৈরবীর আশা আর কোনো দুর্ঘটনা হওয়ার আগেই যেন ব্রিজ হয়।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর পঞ্চগড়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহমুদ জামান বলেন, “আউলিয়ার ঘাটে ওয়াই আকৃতির ৮৯১ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণের দরপত্র মূল্যায়ন প্রক্রিয়া চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। তারপরেই পরবর্তী প্রক্রিয়া শুরু হবে। এখানে সেতুটি নির্মিত হলে এই এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হবে।”

Link copied!