• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন বিনা ও বিনার বিজ্ঞানী


ময়মনসিংহ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ৪, ২০২১, ০৯:১৮ এএম
আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন বিনা ও বিনার বিজ্ঞানী

জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা (আইএইএ) এবং খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) ‘আউটস্ট্যান্ডিং অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)। একই সঙ্গে ‘উইমেন ইন প্ল্যান্ট মিউটেশন ব্রিডিং অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন বিনার মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শামছুন্নাহার বেগম।

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) দুপুরে বিনা কনফারেন্স রুমে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

বিনার মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম জানান, প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃষির উৎপাদনশীলতা ও কৃষকের আয় বর্ধনে ‘প্ল্যান্ট মিউটেশন ব্রিডিং’এ অসামান্য অবদানের জন্য বিনা এবং ‘রিলেটেড বায়োটেকনোলজি’তে অসামান্য অবদানের জন্য বিনার বিজ্ঞানীকে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য আইএইএর ৬৫তম সাধারণ অধিবেশনে আনুষ্ঠানিকভাবে এ পুরস্কার হস্তান্তর করা হবে।

এর আগে ২০১৪ সালে বিনার তৎকালীন মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা বর্তমান মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম প্রথম এ পুরস্কার লাভ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিনার মহাপরিচালক জানান, পরমাণু শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের মাধ্যমে মিউটেশন ব্রিডিং, কনভেনশন ব্রিডিংসহ অন্যান্য কলাকৌশল প্রয়োগ করে ধান, গম, পাট, ডাল, তেল ও উদ্যান তাত্ত্বিক ফসলের উচ্চফলনশীল ও উন্নত মানসম্পন্ন জাত ও উৎপাদন প্রযুক্তি উদ্ভাবনে নিরন্তর কাজ করছে। এ পর্যন্ত বিনা ১৮টি ফসলের ৮৩টি মিউট্যান্ট জাতসহ ১১৭টি স্বল্প জীবনকাল ও উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন করেছ।

বিনা উদ্ভাবিত স্বল্পকালীন, উচ্চফলনশীল বিনাধান উত্তরাঞ্চলের মঙ্গা দূরীকরণ, উপকূলীয় লবণাক্ত এলাকায় লবণসহিষ্ণু বিনা ধানের চাষাবাদ, খরাপীড়িত বরেন্দ্র এলাকাসহ বন্যাকবলিত যমুনা অববাহিকায় বিনা ধানের আবাদ করে চাষিরা বাম্পার ফলন পাচ্ছেন এবং অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হচ্ছেন।

বিনা উদ্ভাবিত সরিষা ও ডালজাতীয় ফসলের সঙ্গে সমন্বয় করে এক ফসলি জমিতে দুই ফসল, দুই ফসলি জমিতে তিন ফসল এবং তিন ফসলি জমিতে চারটি ফসল আবাদ করা সম্ভব হচ্ছে। জিংক সমৃদ্ধ বিনা ধান-২০ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুষ্টির অভাব দূরীকরণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। এছাড়া উদ্যানতাত্ত্বিক ফসলের মধ্যে টমেটো, কাঁচা মরিচ, পেঁয়াজ, লেবুর জাতসমূহ চাষিদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বলেও জানান তিনি।

বিনার মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শামসুন নাহার বেগম ‘উইমেন ইন প্ল্যান্ট মিউটেশন ব্রিডিং অ্যাওয়ার্ড’ পাওয়ায় খুবই আনন্দিত। তিনি বলেন, “এ সম্মাননা আমাকে আরও দায়িত্বশীল করবে। আমি দেশের কৃষকদের জন্য আরও ভালো কিছু করতে এই অর্জন আমাকে সহযোগিতা করবে। আমার এই সফলতার পেছনে যারা সহযোগিতা করেছে, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।”

সংবাদ সম্মেলনে বিনা পরিচালনা পর্ষদের সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, বিনার পরিচালক ড. জাহাঙ্গীর আলম, ড. আবুল কালাম আজাদ ও ড. আব্দুল মালেক, প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম ও ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বাবুল হোসেনসহ বিনার বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Link copied!