• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯
সিটিও ফোরামের সেমিনার

মেধা পাচারে এশিয়ায় চতুর্থ বাংলাদেশ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৬, ২০২২, ০৮:৫১ এএম
মেধা পাচারে এশিয়ায় চতুর্থ বাংলাদেশ

প্রযুক্তিতে দক্ষতার ঘাটতির সঙ্গে দেশে এখন নতুন করে যোগ হয়েছে মেধা পাচার। স্নাতক করেই অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী পাড়ি জমাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায়। এর কারণ খুঁজতে গিয়ে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম দেখেছে, ১৫-২৯ বছর বয়সী তরুণেরা দেশে থাকতে চায় না। তারা বিদেশে মাইগ্র্যাট করতে চায়। বিদেশে লেখাপড়া করতে গিয়ে ৯৮ শতাংশেই আর দেশে ফিরছেন না। এতে ২০২১ সালের গ্লোবাল ইকোনমি প্রতিবেদন অনুযায়ী, মেধা পাচারে বিশ্বের বাংলাদেশের অবস্থান ৩১তম হলেও এশিয়ায় ৪র্থ।

২০১৮ সালে জরিপ করে দূষণ, ট্রাফিক জ্যাম, দুর্নীতি এবং স্বাস্থ্যসেবার অভাবের মতো নিম্ন জীবন মানের সঙ্গে জীবন ও সম্পত্তির নিরাপত্তাহীনতা, মানসম্মত শিক্ষা ও গবেষণার সুযোগের অপ্রতুলতা, কম আয় এবং কর্মপরিবেশ ও চাকরির নিরাপত্তাহীনতার কারণে তারা দেশ ত্যাগ করছে।

শনিবার (৯ এপ্রিল) আইসিটি দক্ষদের মেধা পাচার প্রতিরোধ নিয়ে আয়োজিত ভার্চুয়াল সেমিনার আয়োজনের সভাপতির বক্তব্যে সিটিও ফোরাম সভাপতি তপন কান্তি সরকার বলেন, সরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অনার্স ও মাস্টার্স শিক্ষার্থীর পেছনে বছরে ৫ লাখ টাকা ব্যয় করে। সেখানে বুয়েট শিক্ষার্থীর পেছনে ১০ লাখ এবং মেডিকেল শিক্ষার্থীর পেছনে ১৫ লাখ টাকা ব্যয় করেন। এটা দেশের কৃষক-শ্রমিক মেহনতি জনতার টাকা। কিন্তু মেধা পাচারের মাধ্যমে এই সুফল ভোগ করছে উন্নত বিশ্ব। ২০২০ সালে উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে পাড়ি জমিয়েছে ২ লাখ শিক্ষার্থী। শুধু যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৫ হাজার। এদের মধ্যে ৮০ শতাংশই দেশে ফিরে আসে না। এটা উন্নয়নশীলতার জন্য উদ্বেগের। তাদের দেশে ধরে রাখতে না পারার জন্য বড় কারণ মেধার মূল্যায়নের যথযথ কোনো মেথডোলজি আমাদের নেই। অথচ দেশে বিশেষজ্ঞ পরামর্শক নিয়োগে আমরা ৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করছি। এটা না করে ট্যালেন্ট পুল কাজে লাগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে কাজে লাগাতে পারে। এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন এগিয়ে আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। তিনি আইসিটি সেক্টরে মেধাবী ও তরুণদের ইনোভেশন ট্যালেন্টকে কাজে লাগাতে যুগোপযোগী শিক্ষাব্যাবস্থা গড়ে তুলতে বিশ্ববিদ্যালয় মুঞ্জুরি কমিশানকে সিটিও ফোরাম বাংলাদেশ থেকে সার্বিক সহযোগিতা দেওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন। সিটিও ফোরাম ও তাদের সেন্টার ফর এক্সিলেন্সের মাধ্যমে প্রতিবছর ইনোভেশন হ্যাকাথন আয়োজনের মাধ্যমে দেশের তরুণদের মেধার বিকাশ ও তা দেশের সমস্যাগুলো সমাধানে কাজ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করছে।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ইউজিসি ডিরেক্টর মোহাম্মাদ মাকসুদুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লবকে সামনে রেখে এরই মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস পরিবর্তন করা হয়েছে। এখন প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাস আউটকাম বেসড এডুকেশন বা ওবিই মুডে যাচ্ছে। এই মুড কার্যকর হওয়ার পর হ্যান্ডসন অ্যাপ্লিকেশনগুলো একটু চেঞ্জ হবে। ক্রেডিট আওয়ার কমিয়ে হ্যান্ডসন ও সেশনাল অ্যাপ্লিকেশন বাড়ানো হবে। আশা করি, এর মাধ্যমে অনেক ঘাটতিই মিটিয়ে পাশ্চাত্যকে ছাড়িয়ে যেতে পারব আমরা।

প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে ক্যানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের স্কুল অব সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন সৈয়দ আক্তার হোসেন বলেন, দেশের শিক্ষকরা ডিজিটাল বাংলাদেশের অনেক উদ্যোগ সম্পর্কে সচেতন না থাকায় শিক্ষব্যবস্থায় একটা ঘাটতি রয়েছে। দেশের ইন্ডাস্ট্রিতে শিক্ষকদের ক্ষমতায়ন এবং যৌথ অংশীদারত্ব এই ঘাটতি দূর করবে বলে মত দেন তিনি।

বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের জেনারেল সেক্রেটারি মুনির হাসান বলেন, নতুন প্রজন্মের যারা এখন দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছে তাদের দেশে রাখতে হলে একটি ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে হবে। এজন্য প্রথাগত পেশার চেয়ে সৃজনশীলতার দিকে গুরুত্ব দিতে হবে। কেননা, বিশ্বে এখন সৃজনশীল অর্থনীতির আকার ৩.৮ বিলিয়ন ডলার পার হয়েছে।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেছেন সিটিও ফোরাম বাংলাদেশের কার্যনির্বাহী সদস্য মোহাম্মাদ আসিফ।

তিনি বলেন, একটি কাঠামোবদ্ধ পরিবেশে কোনো নির্দিষ্ট কোম্পানিতে কাজ না করলে কোনো বিষয়েই দক্ষতা অর্জন করা যায় না। তাছাড়া আমাদের দেশে যারা ফ্রিল্যান্সিং করছেন তাদের প্রায় সবাই বিদেশি কোম্পানির জন্য কাজ করছেন। কিন্তু দেশের ভেতরে মিড ও এন্টারপ্রাইজ লেভেলের কোম্পানিগুলো অটোমেশন, ডিজিটাইজেশনে এই রিসোর্সগুলো পাচ্ছে না।

এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য ব্যাঙ্গালুরের এশিয়ান সিলিকনভ্যালি কিংবা তাইওয়ান ও চায়নায় কর মওকুফ, বাসস্থান সুবিধার মতো যেসব উদ্যোগ নিয়েছে তা গ্রহণের পরামর্শ দেন তিনি।

পিএমঅ্যাস্পায়ারের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, পর্যাপ্ত দক্ষ সফটওয়্যার প্রকৌশলী পেতে এখন আমরা বেশ বেগ পাচ্ছি। আগে যেখানে ১০টি আবেদন পেতাম এখন তা ১টিতে নেমে এসেছে। আমাদের বাইরে থেকে প্রকৌশলী নিয়োগ করতে হচ্ছে। এই অবস্থার ক্ষেত্রে মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় উন্নতি ঘটাতে হবে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে বাংলালিংক ডিজিটাল কমিউনিকেশনের হেড অব ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট আয়েশা সাঈদ কেবল ওভার টাইম দেওয়া নয়, কাজের পরিবেশ ও কর্মীবান্ধব নীতি বা ব্যবস্থাপনা উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

ওয়েবিনারটিতে জুমের মাধ্যমে সঞ্চালনা করেন সিইসি বাংলাদেশ ইউনিলিভার্স এর কান্ট্রি লিড উর্মি নূর বিনতে গিয়াস এবং এতে  সিটিও ফোরামের কার্যনীর্বাহি ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ সহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা অংশগ্রহণ করেন। সিটিও ফোরামের অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে ওয়েবিনারটি সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।