• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১, ৮ মুহররম ১৪৪৫

সেন্ট মার্টিনের সঙ্গে মিয়ানমারের কী সম্পর্ক?


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: জুন ১৫, ২০২৪, ০৪:১৫ পিএম
সেন্ট মার্টিনের সঙ্গে মিয়ানমারের কী সম্পর্ক?
সেন্ট মার্টিন দ্বীপ। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের একেবারে দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের উত্তর-পূর্বাংশে অবস্থিত ৮ বর্গ কিলোমটারের প্রবাল দ্বীপটিই সেন্ট মার্টিন। কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে প্রায় ৯ কিলোমিটার দক্ষিণে নাফ নদীর মোহনায় এর অবস্থান। যা মিয়ানমারের উপকূল থেকে পশ্চিম দিকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরে। প্রচুর নারকেল পাওয়া যায় বলে দ্বীপটিকে নারিকেল জিঞ্জিরাও বলা হয়।

বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, খ্রিস্টান সাধু মার্টিনের নাম অনুসারে দ্বীপটির নাম সেন্ট মার্টিন করা হয়েছে। দ্বীপটি নিয়ে দীর্ঘদিন গবেষণা করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক শেখ বখতিয়ার উদ্দিন ও অধ্যাপক মোস্তফা কামাল পাশা।

অধ্যাপক শেখ বখতিয়ার বলেন, বঙ্গোপসাগরের দ্বীপটিকে যখন ব্রিটিশ ভারতের অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তখন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মার্টিনের নাম অনুসারে এর নামকরণ করা হয়।

পর্যটন করপোরেশনের ওয়েবসাইট থেকে জানা যাচ্ছে, ১৮৯০ সালের দিকে দ্বীপটিকে বসতি স্থাপন করে কিছু মৎস্যজীবী। যাদের মধ্যে কিছু বাঙালি এবং কিছু রাখাইন সম্প্রদায়ের লোক ছিল। তবে ধীরে ধীরে দ্বীপটি বাঙালি অধ্যুষিত হয়ে ওঠে।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, মিয়ানমারের আগের নাম ছিল ব্রহ্মদেশ বা বার্মা। দেশটি ব্রিটিশ শাসনের অধীনে ছিল। তবে ১৯০০ সালে ভূমি জরিপের সময় ব্রিটিশ শাসকরা বার্মা থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরের সেন্ট মার্টিন দ্বীপটিকে ভারতের অন্তর্ভুক্ত করে নেয়।

গবেষক অধ্যাপক মোস্তফা কামাল পাশা বলেন, সেই সময়ে বার্মা ব্রিটিশ শাসনের আওতায় থাকলেও সেন্ট মার্টিন দ্বীপকে ব্রিটিশ-বার্মার অন্তর্ভুক্ত না করে তারা ব্রিটিশ-ভারতের অন্তর্ভুক্ত করেছিল। তবে দ্বীপটির সঙ্গে বার্মার একটা সম্পর্ক রয়েই গিয়েছিল।

সেই ঘটনার কয়েক দশক পর ভারতীয় উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের অবসান ঘটে।  এক পর্যায়ে ১৯৭১ সালে এসে বাংলাদেশও স্বাধীন হয়। সেই স্বাধীনতার প্রায় অর্ধশতক পর ২০১৮ সালে এসে মিয়ানমার সরকার তাদের প্রণয়ন করা জনসংখ্যাবিষয়ক একটি মানচিত্রে সেন্ট মার্টিন দ্বীপকে সে দেশের অংশ হিসেবে দেখায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে অভিযোগ জানায় বাংলাদেশ সরকার। ঢাকায় নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সেন্ট মার্টিনের অদূরে মিয়ানমারের যুদ্ধ জাহাজ। ছবি: সংগৃহীত

সেই ঘটনার প্রায় ৫ বছর পর গত ৫ জুন সেন্টমার্টিনে উপজেলা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষে পুলিশের একটি দলসহ সহকারী কমিশনার (ভূমি), প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসাররা ট্রলারের করে টেকনাফে ফিরছিলেন। সেসময় ট্রলারটিকে লক্ষ্য করে মিয়ানমারের ভেতর থেকে ২৫ থেকে ৩০ রাউন্ড গুলি ছোঁড়া হয়। সেই দিনের পর থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌপথে কেউ যাতায়াতের সাহস পাননি।

এর মধ্যেই গত ৮ জুন দুপুরে টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনগামী পণ্যবাহী আরেকটি ট্রলারে ৩০-৪০টি গুলিবর্ষণ করা হয়। তাতে কেউ হতাহত না হলেও ট্রলারটির বিভিন্ন স্থানে সাতটি গুলি লাগে। এ ঘটনার পর নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

এতে তীব্র খাদ্য সংকটে পড়েন সেন্টমার্টিনে বসবাসকারী ১০ হাজারের বেশি মানুষ। এর মধ্যে গত বুধবার (১২ জুন) সন্ধ্যায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের জরুরি সভায় পরদিন ১৩ জুন থেকে যাত্রী আসা-যাওয়া এবং পণ্যবাহী ট্রলার চলাচল শুরুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

একই দিনে নাফ নদ রুটে সেন্টমার্টিনে চলাচলকারী বাংলাদেশি ট্রলারে মিয়ানমার থেকে গুলির ঘটনায় প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত ইউ কিয়াও সোয়ে মোয়ের কাছে প্রতিবাদপত্র হস্তান্তর করা হয়।

Link copied!