• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৩ মুহররম ১৪৪৫

পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী কে এই শাহবাজ?


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১১, ২০২২, ০৮:২৯ পিএম
পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী কে এই শাহবাজ?

পাকিস্তানের ২৩তম প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সভাপতি শাহবাজ শরীফ। আস্থা ভোটে হেরে সংসদে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন বর্জন করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআই। ফলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয় লাভ করেন শাহবাজ।

কিন্তু কে এই শাহবাজ শরীফ?

১৯৫০ সালে লাহোরে জন্মগ্রহণ করেন শাহবাজ। তিনি পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) বর্তমান সভাপতি। পাকিস্তানের  তিনবার নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ছোট ভাই শাহবাজ।

পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম ডন বলছে, শাহবাজ একজন ‘ওয়ার্কহোলিক’ হিসেবে পরিচিত। মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালে নিজেকে মন্ত্রীর পরিবর্তে ‘খাদিম-ই-আলা’ (প্রধান কর্মচারী) বলতে পছন্দ করতেন তিনি।

মিয়া মোহাম্মদ শরীফের দ্বিতীয় ছেলে শাহবাজ। তিনি একজন প্রভাবশালী ব্যবসায়ী। যৌথভাবে ইত্তেফাক গ্রুপ অব কোম্পানির মালিক শাহবাজ। তিনি ১৯৮৫ সালে লাহোর চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতিও নির্বাচিত হয়েছিলেন।

শাহবাজ তিনবার পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি ১৯৯৭ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত এই পদে প্রথমবার অধিষ্ঠিত ছিলেন। সাবেক সামরিক শাসক পারভেজ মোশাররফ শরীফ ভাইদের সৌদি আরবে নির্বাসিত করার আগে এবং পরে আবার ২০০৮ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত পাঞ্জাবের দায়িত্বে ছিলেন শাহবাজ। পিটিআই ক্ষমতা থাকাকালে জাতীয় পরিষদে বিরোধী দলের নেতা নির্বাচিত হন তিনি।

শাহবাজ প্রথম ১৯৮৮ সালে পাঞ্জাব অ্যাসেম্বলিতে এমপিএ নির্বাচিত হন। ১৯৯০ সালে তিনি এমএনএ হিসেবে ফিরে এসে জাতীয় পরিষদের আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৯৩ সালে তিনি আবার একটি প্রাদেশিক বিধানসভা আসনের জন্য দাঁড়ান এবং পাঞ্জাব অ্যাসেম্বলিতে বিরোধী দলের নেতা হন। ১৯৯৬ সালে তার মেয়াদ শেষ হয়।

১৯৯৭ সালের নির্বাচনে জয়লাভের পর শাহবাজ প্রথমবারের মতো দেশের বৃহত্তম প্রদেশ পাঞ্জাবের সেবা করার সুযোগ পান। ১৯৯ সালে মোশাররফের সামরিক অভ্যুত্থান পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

প্রায় এক দশকের নির্বাসন থেকে ফিরে আসার পর ২০০৮ সালের নির্বাচনে পিএমএল-এন সংখ্যাগরিষ্ঠ সংখ্যক আসন জয়ের পর শাহবাজ দ্বিতীয়বারের মতো পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী হন।

২০০৮ সালে শাহবাজ পাঞ্জাব বিধানসভায় তিনটি আসনে জয় লাভ করেন। এছাড়া জাতীয় পরিষদের একটি আসনে জিতেছিলেন তিনি।

পাঞ্জাবের মেট্রো বাস প্রকল্পগুলোকে তার সবচেয়ে বড় অর্জন হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

শাহবাজের ছেলে হামজা শাহবাজ শরীফ একজন এমপিএ হিসেবে কাজ করছেন। তিনি পাঞ্জাবের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রীর প্রার্থী। হামজা শরিফ পিটিআই সরকারের আমলে পাঞ্জাব বিধানসভায় বিরোধীদলীয় নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে শাহবাজ একাধিক আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। কিন্তু শুধুমাত্র লাহোরে জয় লাভ করেন তিনি। এরপর পাঞ্জাবে বিধানসভা নির্বাচনে দুইটি আসনেও বিজয়ী হন তিনি।

১৮ সালের নির্বাচনের পর তিনি জাতীয় পরিষদের আসনে থাকতে ইচ্ছা পোষণ করেন। পিটিআই এর বিরোধী জোট শাহবাজ শরিফকে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে মনোনীত করে। সে সময় ইমরান খানের বিপক্ষে দাঁড়িয়ে জাতীয় পরিষদে মাত্র ৯৬ ভোট পান তিনি। আর ১৭৬ ভোট পেয়ে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন ইমরান খান।

Link copied!