• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

‘টিকা না নিয়ে চলাচল করলে অপরাধ বলে গণ্য হবে’


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: আগস্ট ৩, ২০২১, ০৬:০০ পিএম
‘টিকা না নিয়ে চলাচল করলে অপরাধ বলে গণ্য হবে’

১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যারা বাইরে চলাফেরা করবেন, তারা টিকা না নিয়ে চললে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে উল্লেখ করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেন, “টিকা না নিয়ে কেউ দোকান খুলতে পারবেন না বা বাইরে বেরোতে পারবেন না।”

মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) করোনাভাইরাসের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভা শেষে এসব তথ্য জানান বৈঠকের সভাপতি মোজাম্মেল হক। সভায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

সরকারের হাতে এখন প্রায় সোয়া কোটি টিকা আছে বলে উল্লেখ করেন জাহিদ মালেক।

এছাড়া, এ মাসে আরও প্রায় এক কোটি টিকা আসবে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন,  “চীনের সঙ্গে মিলে স্থানীয়ভাবেও টিকা উৎপাদনের কাজ এগিয়ে চলছে।”

জানা যায়, ৭ আগস্ট থেকে ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন পর্যায়ে মোট ১৪ হাজার কেন্দ্রে একযোগে গণটিকাদান শুরু হবে। প্রায় এক কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হবে সাতদিনের মধ্যে। বয়স্ক মানুষ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এবং একই সঙ্গে শ্রমজীবী মানুষ, দোকানদার, গণপরিবহনের কর্মীদের নিজ নিজ ওয়ার্ড থেকে টিকা নিতে হবে। টিকা না নেওয়া ছাড়া কেউ কোনো কর্মস্থলে আসতে পারবেন না।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সভায় দেশে চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আরও ৫ দিন বাড়িয়ে ১০ আগস্ট পর্যন্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

দেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনক পর্যায়ে চলে যাওয়ায় গত কয়েক মাস ধরে বিধিনিষেধ আরোপ করে তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে সরকার। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে আট দিনের জন্য শিথিল করা হয়েছিল বিধিনিষেধ। এরপর আবার গত ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ১৪ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার। আগামী ৫ আগস্ট মধ্যরাত পর্যন্ত থাকবে এই বিধিনিষেধ।

সরকার থেকে ‘কঠোরতম’ বিধিনিষেধের কথা বলা হলেও শেষ পর্যন্ত ব্যবসায়ীদের দাবির মুখে সেটা আর রাখতে পারেনি। কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে রোববার (১ আগস্ট) থেকে রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দিয়েছে সরকার। এই ঘোষণার পর শনিবার (২ আগস্ট) ঢাকামুখী মানুষের ঢল নেমেছে। গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কাজে যোগ দিতে শ্রমিকরা সীমাহীন দুর্ভোগ সয়ে কর্মস্থলে ফিরছেন। এর আগে বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে দ্রুত দেশের রপ্তানিখাতসহ সব উৎপাদনমুখী শিল্পকারখানা স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলে দেওয়ার দাবি জানায় ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই)।

জাতীয় বিভাগের আরো খবর

Link copied!