• ঢাকা
  • রবিবার, ১৯ মে, ২০২৪, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

অস্ত্রের মুখে দুই কিশোরকে বলাৎকার, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার


কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
প্রকাশিত: মে ২৩, ২০২৩, ১০:২২ এএম
অস্ত্রের মুখে দুই কিশোরকে বলাৎকার, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার
গ্রেপ্তার ছাত্রলীগ নেতা জয়ন্ত কুমার মোহন্ত

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুই কিশোরকে বলাৎকারের ঘটনায় জয়ন্ত কুমার মোহন্ত (৩০) নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২২ মে) সন্ধ্যায় উপজেলার বিলুপ্ত ছিটমহলের কালিরহাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ফুলবাড়ী থানা-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফজলুর রহমান অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা জয়ন্ত কুমার মোহন্তকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার বিকেলে ভুক্তভোগী এক কিশোরের দাদা শামসুল হক বাদী হয়ে মামলা করলে তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জানা গেছে, জয়ন্ত কুমার উপজেলার ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি এবং মধ্য পানিমাছকুটি গ্রামের মৃত দেবেন্দ্রনাথ মোহন্তের ছেলে। তার বিরুদ্ধে ফুলবাড়ী থানায় মাদক ব্যবসা, চুরি ও মারামারির অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে।

আরও জানা যায়, রোববার দুপুরে উপজেলার মধ্য পানিমাছকুটি গ্রামের নিজ বাড়িতে জয়ন্ত দুই কিশোরকে কৌশলে ডেকে নিয়ে গিয়ে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বলাৎকার করেন। নির্যাতনের শিকার ওই দুই কিশোর বর্তমানে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। তাদের একজন উপজেলার কুঠিবাড়ী মডার্ন উচ্চ বিদ্যালয় ও অপর জন ফুলবাড়ী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

মামলার বাদী শামছুল হক কলেন, “রোববার সকাল ১১টার দিকে জয়ন্ত আমার নাতিকে ফোন করে তার চায়ের দোকানে ডাকে। ফোন পেয়ে আমার নাতি চার বন্ধু মিলে উপজেলা সদরে জয়ন্তের চায়ের দোকানে যায়। সেখানে চা-নাশতা খাওয়ানোর পর জয়ন্ত তাদের কৌশলে অটোরিকশায় উঠিয়ে নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে তিনজনকে বাড়ির পাশের মুদির দোকানে বসিয়ে রেখে গোপন পরামর্শের কথা বলে আমার নাতিকে নিয়ে বাড়িতে ঢোকে। পরে জয়ন্ত আমার নাতির গলায় ছুরি ঠেকিয়ে এবং লাঠি দিয়ে মেরে জোরপূর্বক বলাৎকার করে।”

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা জয়ন্ত কুমার মোহন্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, “আমাকে ষড়যন্ত্রমূলক ফাঁসানো হচ্ছে।”

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তৌকির হাসান তমাল জানান, কারও ব্যক্তিগত অপরাধের দায় সংগঠন নেবে না। এ ঘটনায় তাকে ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।
 

Link copied!