• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

যমুনায় নৌকাবাইচ দেখতে হাজারো মানুষের ঢল


টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২৩, ০৭:৫২ পিএম
যমুনায় নৌকাবাইচ দেখতে হাজারো মানুষের ঢল

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে দুই দিনব্যাপী গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকেলে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের গোবিন্দাসী গরুর হাটের উত্তর পশ্চিমে যমুনা নদীতে এ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। প্রথম দিনে ১৫টি নৌকা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) এ প্রতিযোগিতার ফাইনাল নৌকাবাইচ অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে ঐতিহ্যবাহী এই খেলা দেখতে দুপুর থেকেই বিনোদন পিপাসু হাজারো মানুষের ঢল নামে যমুনার দুপাড়ে। জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বৃদ্ধ ও শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের কয়েক হাজার মানুষ নৌকাবাইচ দেখতে আসেন। কেউ কেউ ছোট কিংবা বড় নৌকা ভাড়া করে পরিবার পরিজন নিয়ে নদীর বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়। রঙ-বেরঙের বাহারি নৌকা, বাদ্যযন্ত্রসহ সব মিলিয়ে যমুনা নদীর গোবিন্দাসী এলাকায় বইছিল উৎসবের আমেজ। যমুনার পাড়ে হাজারো মানুষের যেন এক মিলন মেলায় পরিণত হয়।

জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে সুসজ্জিত নৌকা আর রং-বেরঙের বাহারি পোশাক পড়ে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। গ্রাম বাংলার গান আর বৈঠার ছন্দে মাতিয়ে তুলেছিল যমুনার নদীর ঢেউকে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পানির মধ্যে নেমে, নদীর চরসহ বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান নিয়ে প্রতিযোগিতা উপভোগ করছেন অনেকে। নৌকায় ঘুরে পরিবার পরিজনকে নিয়ে বাইচ দেখতে আনন্দে উম্মুখ হয়ে ওঠে গ্রামাঞ্চলের মানুষ। আর এ প্রতিযোগিতা উপলক্ষে নদীর পাড়ে বিভিন্ন ধরনের দোকান বসে।

ঐতিহ্যবাহী এই আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টাঙ্গাইল-২ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির।

আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক ও গোবিন্দাসী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দুলাল চকদারের সভাপতিত্বে এতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বেলাল হোসেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নার্গিস বেগম, ভাইস চেয়ারম্যান মনিরুল ইসলাম বাবু, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান প্রমুখ। 

নৌকা বাইচ দেখতে আসা বৃদ্ধা ফজল শেখ (৭০) বলেন, বর্তমানে গ্রাম বাংলা নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা হারিয়ে যাচ্ছে। এখন আগের মতো এই প্রতিযোগিতা দেখা যায় না। তাই একটু আনন্দ উপভোগ করতে সিরাজগঞ্জ জেলার চৌহালী থেকে নৌকাবাইচ দেখতে এসেছি। পরিবারকে বলে এসেছি মরেই তো যাব শেষবার নৌকা বাইচ দেখে আসি। খুব ভালো লাগছে।”

চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী দোলা আক্তার বলে, “আমি নৌকাবাইচ দেখতে এসেছি। নৌকাবাইচ দেখে অনেক ভালো লাগলো। ভবিষ্যতে এ প্রতিযোগিতা আয়োজন করার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি।”

টাঙ্গাইল-২ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির বলেন, “গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে ও যমুনার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষদের আনন্দ দিতে এ আয়োজন করা হয়েছে। আগামীতে এ নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা অব্যাহত থাকবে।”

Link copied!