• ঢাকা
  • শনিবার, ১৮ মে, ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

আতঙ্কের মহাসড়কে স্বস্তির ঈদযাত্রা


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত: এপ্রিল ২০, ২০২৩, ০২:৪৯ পিএম
আতঙ্কের মহাসড়কে স্বস্তির ঈদযাত্রা

ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে নাড়ির টানে প্রিয়জনদের কাছে ফিরছেন ঘরমুখো মানুষ। বুধবার ভোর থেকে মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বাড়লেও এবার উত্তরবঙ্গের মানুষ স্বস্তিতেই পার হচ্ছেন যানজট আতঙ্কে থাকা সিরাজগঞ্জের ৪৫ কিলোমিটার মহাসড়ক। মহাসড়কে যানবাহনের চাপ থাকলেও কোথাও কোনো ধীরগতি বা যানজট নেই। তবে গতকালের তুলনায় আজ ভোর থেকে আরও বেড়েছে যানবাহনের চাপ।

ঢাকা থেকে রংপুরগামী যাত্রী আহসান হাবিব। একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করেন। পরিবারের সবার সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে প্রিয়জনদের কাছে ফিরছেন। যাত্রাবিরতিতে নেমেছেন সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল গোলচত্বর এলাকার একটি হোটেলে। আহসান হাবিব বলেন, “অন্যান্য বছর ঈদযাত্রায় সিরাজগঞ্জের মহাসড়ক শুনলেই যেন একটা আতঙ্ক হতো। এবার এক নতুন অভিজ্ঞতা হলো। আতঙ্কে থাকা এই মহাসড়কে এতোটা স্বস্তির যাত্রা হবে ভাবতে পারিনি।”

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমের কড্ডার মোড় এলাকা থেকে সার্জেন্ট তাহাজ্জৎ হোসেন বলেন, সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। তবে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম মহাসড়কের কোথাও কোনো যানজট বা ধীরগতি নেই। কোনো যানবাহন যেন এলোমেলোভাবে ঢুকে যানজট সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখা হচ্ছে।

ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা পাবনাগামী শাহজাদপুর এক্সপ্রেসের যাত্রী প্রকৌশলী আকিবুল ইসলাম বলেন, “এ বছরেই প্রথম ঈদযাত্রায় কোনো প্রকার যানজট ও ধীরগতি ছাড়াই সিরাজগঞ্জের মহাসড়ক পার হলাম। এবারের সিরাজগঞ্জের মহাসড়কের ঈদযাত্রা সত্যিই যেকোনো বছরের চেয়ে সুন্দর ছিল।”

হাটিকুমরুল গোলচত্বর এলাকা থেকে হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানা পুলিশের ট্রাফিক পরিদর্শক মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, “ভোর থেকে মহাসড়কে গাড়ির চাপ আরও বেড়েছে। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমরা তৎপর রয়েছি। পাশাপাশি হাটিকুমরুল গোলচত্বর এলাকায় ওয়াচ টাওয়ার বসিয়ে যান চলাচল মনিটরিং করা হচ্ছে।”

সিরাজগঞ্জের ট্রাফিক পরিদর্শক (প্রশাসন) সালেকুজ্জামান খান সালেক বলেন, “সময়ের ব্যবধানে মহাসড়কে যানবাহন বাড়ছে। ভোরের দিক থেকে সেটি আরও বেড়েছে। তবে মহাসড়কে চাপ থাকলেও যানজট বা ধীরগতি নেই। আশা করছি উত্তরবঙ্গের ঘরে ফেরা মানুষের এবারের ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন ও নিরাপদ হবে।”

Link copied!