• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বাড়ির আঙিনায় মাল্টা চাষে সফল কাজী কামাল


কুমিল্লা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ২৯, ২০২৩, ১০:২০ এএম
বাড়ির আঙিনায় মাল্টা চাষে সফল কাজী কামাল

মাল্টা পাহাড়ি ফল হিসেবে পরিচিত হলেও সমতল ভূমিতেও রয়েছে এ ফলের ব্যাপক সম্ভাবনা। কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় বাড়ির আঙিনায় মাল্টা চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন কাজী কামাল উদ্দিন।

কাজী কামাল উদ্দিন তিতাস উপজেলার ৫ নম্বর কলাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের সচিব হিসেবে কর্মরত। তার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লার হোমনা উপজেলার কাশিপুর হলেও চাকরি করার সুবাদে তিতাস উপজেলায় সপরিবার বসবাস করছেন।

জানা যায়, প্রায় দুই বছর আগে পরিবারের পুষ্টির চাহিদা মেটানোর জন্য উপজেলা কৃষি অফিস থেকে ৪৫টি মাল্টার চারা এনে বাড়ির আঙিনায় ২০ শতাংশ জায়গার মধ্যে মাল্টা চাষ শুরু করেন কামাল উদ্দিন। প্রথম বছর অল্প পরিমাণ মাল্টার ফলন হলেও এ বছর প্রতিটি গাছে ৪০-৫০টি করে মাল্টা ঝুলছে। এতে পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে বাজারেও বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। এ ছাড়া বাড়িটিতে রয়েছে কমলা, লেবু, পেঁপে, ড্রাগন, পেয়ারা, সফেদা, মরিচ, এলাচ, দারচিনি, করমচা, বেলেম্বো, কাঁঠাল, নারকেল, আমড়া, ল্যাংড়া ও আম্রপালি আমসহ প্রায় ২৫ ধরনের নানা প্রজাতির ফল গাছ।

এদিকে বাড়ির আঙিনায় খালি জায়গাকে কাজে লাগিয়ে এ ধরনের একটি ফলদ বাগান সফলতার মুখ দেখায় বাগানটি দেখতে এবং পরামর্শ নিতে গ্রামের লোকজন আসেন তার বাড়িতে। অনেকে তার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে আঙিনায় বাগান করার আগ্রহী হয়েছেন।

কামাল উদ্দিন বলেন, “আমি একজন গাছপাগল। ছোটবেলা থেকে গাছ লাগাতে এবং পরিচর্যা করতে ভালোবাসি। তাই বাড়ির আঙিনার খালি জায়গাকে কাজে লাগানোর জন্য মাল্টাসহ বিভিন্ন ধরনের ফল ও সবজির বাগানটি করেছি। চাকরি করার পাশাপাশি অবসর ও ছুটির দিনে বাগানে সময় দিয়ে থাকি।”

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সালাহউদ্দিন বলেন, “কাজী কামাল উদ্দিন তার বাড়ির আঙিনায় মাল্টা চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন। আমরা সব সময় তাকে পরামর্শ দিয়েছি। তার এ মাল্টার চাষ দেখে অনেকেই আগ্রহী হয়ে শুরু করে মাল্টার চাষ। আমরা এ বিষয়ে তাদের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।”

Link copied!