• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

পুরাতনকে বিদায় জানিয়ে দেশব্যাপী নানা আয়োজনে বর্ষবরণ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৪, ২০২৩, ০৭:৪৫ পিএম
পুরাতনকে বিদায় জানিয়ে দেশব্যাপী নানা আয়োজনে বর্ষবরণ

বর্ণাঢ্য আয়োজনে সারাদেশে উদযাপিত হয়েছে বাংলা নববর্ষ ১৪৩০। পয়লা বৈশাখ আমাদের সকল সঙ্কীর্ণতা, কূপমুণ্ডকতা পরিহার করে উদারনৈতিক জীবনব্যবস্থা গড়তে উদ্বুদ্ধ করে। আমরা যে বাঙালি, বিশ্বের বুকে এক গর্বিত জাতি, পহেলা বৈশাখের বর্ষবরণে আমাদের মধ্যে এই স্বাজাত্যবোধ এবং বাঙালিয়ানা নতুন করে প্রাণ পায়, উজ্জীবিত হয়। প্রতিবছরের মতো এবারও বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নিতে বর্ণিল উৎসবে মেতে উঠেছে দেশ। ভোরের আলোয় রাঙিয়ে দেবে নতুন স্বপ্ন, প্রত্যাশা আর সম্ভাবনাকে।

সারাদেশের মতো রংপুরে উদযাপন করা হয়েছে বাংলা নববর্ষকে। এ উপলক্ষে শুক্রবার (১৪ এপ্রিল) সকালে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরি মাঠে উদ্বোধন করা হয় দুই দিনব্যাপী লোকজ মেলা। সকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে নগরীর টাউনহল চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা স্কুলের বটমূল চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

বিগত বছরের সব অপ্রাপ্তি আর গ্লানি মুছে দিয়ে জীর্ণ ও পুরাতনকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নিয়েছে রাজশাহীবাসী। সকাল থেকে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বর্ণিল আয়োজনে দিনটি উদযাপন করা হয়েছে। বর্ষবরণ উপলক্ষে রাজশাহীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগে নানা কর্মসূচি পালন করে। এ উপলক্ষ্যে সকাল দশটায় সিএন্ডবি মোড় থেকে এক বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়ে বাংলাদেশ শিশু একাডেমির রাজশাহী কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়। পরে শিশু একাডেমি চত্বরে বাঙালির শেকড়ের প্রস্ফুটিত উৎসব পহেলা বৈশাখ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে পর্যটন শহর কক্সবাজারে উদযাপিত হয়েছে। ১৮২৯ বঙ্গাব্দকে বিদায় ও ১৪৩০ বঙ্গাব্দকে জেলাব্যাপী ছিল নানা আয়োজন।

এদিকে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে কক্সবাজার শহরের পাবলিক লাইব্রেরি ঐতিহ্যবাহী দৌলত ময়দানের বটতলে গানে-গানে শুরু হয় বৈশাখ উদযাপনের অনুষ্ঠান। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, কক্সবাজার শাখার আয়োজনে অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন তাদের পরিবেশনা করতে থাকেন। সকাল ৮ টায় বের করা হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। বিশ্বব্যাপী শান্তির আহ্বানে আয়োজিত শোভাযাত্রাটি কক্সবাজার শহরের প্রধান সড়ক পদক্ষিণ করেন।

সারাদেশের মতো সিলেটেও শুভ নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সিলেট নগরজুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশে বরণ করা হয়ে নতুন বছর ১৪৩০ বঙ্গাব্দকে। সিলেট নগরীতে প্রথমে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে শিশুদের শিখন প্রতিষ্ঠান ‘পাঠশালা’। শতাধিক শিশুর অংশগ্রহণে শোভাযাত্রাটি কবি নজরুল অডিটোরিয়াম প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে ব্লু বার্ড বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে যায়। সেখানে আবৃত্তি সংগঠন শ্রুতি আয়োজিত বৈশাখী আয়োজনে পাঠশালার শিশুরা আবৃত্তি পরিবেশন করে।

বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে নওগাঁয় মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে ৯টায় শহরের জিলা স্কুল থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন শেষে পুরাতন কালেক্টরেট চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ নানা আয়োজনে পাবনায় বর্ষবরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।সকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শহরের বীরমুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বকুল স্বাধীনতা স্কয়ার থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি পাবনা জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।

মঙ্গল শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, পুরস্কার বিতরণ ও দেশবাসীর মঙ্গল কামনার মধ্য দিয়ে সাতক্ষীরায় বাংলা নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ উপলক্ষে শুক্রবার সকাল ১০টায় জেলা কালেক্টরেট চত্বরে বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রার উদ্বোধন করা হয়। বর্ণাঢ্য এই মঙ্গল শোভাযাত্রা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

বাঙালির ঐতিহ্য পয়লা বৈশাখ ফেনীতে আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপন হয়েছে। দিনব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ফেনী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে সরকারি পাইলট হাই স্কুল মাঠ থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এসে শেষ হয়। স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠনের পাশাপাশি শিল্পীদের অংশগ্রহণে মনোমুগ্ধকর সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে নতুন বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নেওয়া হয়। এছাড়াও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে দিনব্যাপী লোকজ মেলার আয়োজন করা হয়।

Link copied!