• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১৪ আশ্বিন ১৪২৯

কাপ্তাই লেকে পর্যটকদের হাতছানি দিচ্ছে ‘হাউজ বোট’


রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩, ২০২২, ০৮:০২ পিএম
কাপ্তাই লেকে পর্যটকদের হাতছানি দিচ্ছে ‘হাউজ বোট’

রাঙামাটি বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দর পর্যটন জেলা। বিশাল কাপ্তাই লেক, সেই লেকের মধ্যে ডুবে থাকা পাহাড়, পাহাড়ি নদী আর ঝর্ণার জীবন্ত ক্যানভাস। এবার কাপ্তাই লেকে পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াতে যুক্ত হয়েছে বেশ কয়েকটি ‘হাউজ বোট’।

এই হাউজ বোটে করে জলে ভেসে প্রকৃতির রুপ ও সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য পর্যটকদের হাতছানি দিচ্ছে। তাই পর্যটকরা এখন অবসরে যান্ত্রিকতার অবসান ও ক্লান্তি দূর করতে পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে ছুটে আসতে রাঙামাটিতে আর তাদের পছন্দের এক মাত্র এই হাউজ বোটগুলো। সারাদিন জলে ভেসে হ্রদ পাহাড়ের সৌন্দর্যের উপভোগ করে রাত্রিযাপন করার সুযোগ রয়েছে।

কাপ্তাই হ্রদে ভেসে বেড়ানোর বেশ কয়েকটি হাউজ বোট রয়েছে। তাদের মধ্যে অন্যতম প্রমোদিনী, রাঙাতরী, স্বপ্নডিঙ্গি, মাউরুন। এই বোট গুলোতে রয়েছে ভিন্ন অনুসারে ভ্রমণ প্যাকেজ। প্রতিজন ৬ হাজার টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্যাকেজ রয়েছে হাউজ বোটগুলোতে। বোটগুলো আকার অনুযায়ী ১০-১২ বা ১৫-১৭ জনও থাকতে পারে।

চট্টগ্রাম থেকে বেড়াতে আসা নব দম্পতি আরফিন মেহেদী ও তাসনিম আক্তার বলেন, “আমাদের বিয়ে হয়েছে ৩ মাস হচ্ছে। বিয়ের পর এটাই আমাদের প্রথম ট্যুর। তাই স্মরণীয় হিসেবে রাখতে আমরা কাপ্তাই হ্রদে ঘুরছি এবং রাত্রিযাপন করেছি।”

পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা ইসরাফিল হক বলেন, “আমরা পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছি। এই ধরণের হাউজ বোট আমি কাশ্মীরে দেখেছি। এখন আমাদের দেশে এই ধরণের বোটের সুবিধা থাকায় কাউকে আর বাইরে দেশে যেতে হবে না।”

প্রমোদিনী হাউস বোটের স্বত্ত্বাধিকারী দীপাঞ্জন বলেন, “আমরাই প্রথম কাপ্তাই হ্রদে হাউজ বোট নিয়ে আসি। এরপর অনেকে হাউজ বোট নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছে। এটিকে পজেটিভ দেখছি আমরা।”

তিনি আরও বলেন, “২০১৯ সালে প্রথম হাউজ বোটটি হ্রদের জলে নামাই। চাহিদা দেখে আমরা একে একে তিনটি হাউজ বোট নামিয়েছি। এ বছর আরও একটি তৈরি করছি যেটি আগামী নভেম্বর-ডিসেম্বরের মধ্যে হ্রদের জলে পর্যটকদের সেবা দিতে নামবে।”

মাউরুন হাউজ বোটের দায়িত্বরত কর্মকর্তা উচ্ছল চাকমা বলেন, “মোটামুটি সাড়া পাচ্ছি। আশা করছি সামনে পর্যটন মৌসুমে ভালো পর্যটকের সাড়া মিলবে। হাউজ বোট হচ্ছে পর্যটনের জন্য একটি নতুন সম্ভাবনা। এটিকে আরও উন্নয়ন করা হলে পর্যটন ক্ষেত্রে ভালো ভূমিকা রাখবে।”

Link copied!