• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্রুততম ১৯ সেঞ্চুরির দেখা পেলেন বাবর


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ৩০, ২০২৩, ০৮:২০ পিএম
ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্রুততম ১৯ সেঞ্চুরির দেখা পেলেন বাবর
ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজমের কাছে রেকর্ড ভাঙা-গড়া যেন ‘ডাল-ভাত’।  মাঠেই নামলেই নতুন নতুন কীর্তি গড়েন তিনি। গত ২৫ আগস্ট আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ক্যারিয়ারের প্রথম ১০০ ইনিংসে সবচেয়ে বেশি রান তোলার রেকর্ড গড়েছিলেন।

এবারের এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে শতক হাঁকালেন বাবর আজম। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে নিজের ১৯ তম সেঞ্চুরির দেখা পেলেন পাকিস্তান অধিনায়ক। আর এটি তার এশিয়া কাপে প্রথম সেঞ্চুরি। শততম রানের ইনিংসকে তিনি শেষ পর্যন্ত নিয়ে গিয়েছেন ১৫১ রানে। বাবর ১৩১ বলে তার দেড়শ রানের ইনংসটি সাজিয়েছেন ১৪ চার ও ৪ ছক্কায়। এটি তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংস।

পাকিস্তানের ব্যাটিং ইনিংসের ৪২ তম ওভারে দীপেন্দ্র সিং আইরির করা দ্বিতীয় বলে ডিপ ব্যাকওয়াড সাইড দিয়ে ২ রান নিয়ে নিজের শতক পূরণ করেন তিনি। এরপর ঘাসের উপরে সেজদায় লুটিয়ে পড়লেন তিনি। পাক ব্যাটারের সেঞ্চুরির করার পর আল্লাহর কাছে পার্থনা করা সেই চির চেনা উদযাপন। এদিন বাবর শততম রানে পৌঁছাতে খেলেছেন ১০৯ বল। তিনি ক্রিজে ১২৪ মিনিট ব্যাট করে ১০ চারের সাহায্যে ১৯তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন।

পাক অধিনায়কের ওয়ানডে অভিষেক হয় ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। বাবর অভিষেকের পর প্রথম সেঞ্চুরি করেন ২০১৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। বাবর ওয়ানডে ক্রিকেটে এই পর্যন্ত ১০২ ইনিংস ব্যাট করে ১৯টা শতক হাঁকিয়েছেন। কয়দিন আগেই হাশিম আমলা, ভিভ রিচার্ডসনদের পিছনে ফেলে ১০০ ইনিংসে দ্রুততম রানের রেকর্ড গড়েন তিনি। বর্তমানে আইসিসি ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে আবস্থান করছেন পাকিস্তান অধিনায়ক। এবার বাবর ১০২ ইনিংস ব্যাট করে দ্রুততম ১৯ সেঞ্চুরি করার রেকর্ড গড়লেন। আমলা দ্রুততম ১৯ সেঞ্চুরির তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন। তিনি ১৯তম শতক পূর্ণ করতে খেলেছেন ১০৪ ইনিংস। এরপর আছেন বাবরের সময়ের অন্যতম চির-প্রতিদ্বন্দ্বি বিরাট কোহলি। তিনি ১৯তম শতক পূর্ণ করতে খেলেছেন ১২৪ ইনিংস।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারে বাবরের ৫৮ দশমিক ৪৪ গড়ে ৮৮ স্ট্রাইকরেটে রান করেছেন ৫ হাজার ৩৫৩। এই ব্যাটারের নামের পাশে ১৯ টা শতকের পাশা-পাশি ২৮টি অর্ধশতক রানে ইনিংস রয়েছে। বাবর ১০০ রান করার পর নেপাল বোলারদের উপরে চড়াও হতে শুরু করেন। ১০৯ বলে ১০০ রান পূর্ণ করার পরের ২০ বল খেলে ১০০ রানকে নিয়ে গিয়েছেন ১৫০ রানে। তবে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় বারের মত ১৫০ রান পুরন কারার পর ১ রান যোগ করতেই সোমপাল কামির বলে আউট হয়ে প্যাভিলিয়ানের পথ ধরেন। এত বড় ইনিংস খেলার পরও বাবরের একটা আক্ষেপ থেকেই যাবে। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসটি খেলতে না পারা। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস থেকে তিনি দূরে ছিলেন মাত্র ৮ রান। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৫৭ রানের ইনিংসটি ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ রানের ইনিংস এই ব্যাটারের।

বাবর এশিয়া কাপে এর আগে ৫ ম্যাচে ব্যাট হাতে নামলেও সেঞ্চুরির দেখা পাননি । তবে ষষ্ঠ ম্যাচে এসে খেললেন এশিয়া কাপের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। করলেন এই টুর্নামেন্টে প্রথম সেঞ্চুরি। সব মিলিয়ে তৃতীয় পাকিস্তান অধিনায়ক হিসেবে এশিয়া কাপে সেঞ্চুরি পেলেন বাবর। তার আগে এ কীর্তি ছিল শোয়েব মালিক ও শহীদ আফ্রিদির।

২৭ ওভার ৪ বলে ১২৭ রানে আগা সালমানের বিদায়ে ব্যাটিংয়ে আসে ইফতেখার আহম্মেদ। আর অন্যপ্রান্তে ব্যাটিংয়ে ছিলেন পাক অধিনায়ক বাবর আজম। এই দুই জন পঞ্চম উইকেট জুটিতে করেন ১৩১ বলে ২১৪ রান। দুই জনেই তুলে নেন সেঞ্চুরি। ইফতেখারের এটাই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম শততম রান। ইফতিখার সেঞ্চুরি করেন ৬৭ বলে, তিনি অপরাজিত থাকেন ৭১ বলে ১০৯ রানে।

Link copied!