• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০, ১১ শা’বান ১৪৪৫

বিশ্বকাপ সূচি নিয়ে কপিল দেবের ক্ষোভ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ৩, ২০২৩, ০২:৫০ পিএম
বিশ্বকাপ সূচি নিয়ে কপিল দেবের ক্ষোভ
ফাইল ছবি

এক যুগ পর আবারও ওয়ানডে বিশ্বকাপ আয়োজন করতে যাচ্ছে ভারত। এর আগে ২০১১ সালে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা সঙ্গে যৌথভাবে আয়োজন করলেও, এবার এককভাবে বিশ্বকাপ আয়োজন করছে দুবারের ওয়ানডে বিশ্বকাপজয়ী দলটি। ভারতের ১০টি ভেন্যুতে এবারের বিশ্বকাপ ম্যাচগুলো আয়োজন করা হবে। তবে নিজ দেশে খেললেও ভারতকে ভ্রমণ করতে হবে হাজার হাজার কিলোমিটার। আর তাতেই খেপেছেন সাবেক ভারতীয় অলরাউন্ডার কপিল দেব।

২০১৩ সালের  চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়ের পর ভারতীয়রা আর কোনো বৈশ্বিক শিরোপা জয়ের স্বাদ পায়নি। এরপর ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, ২০১৭ চ্যাম্পিয়নস ট্রফি এবং ২০২১ ও ২০২৩ টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে হেরেছে দলটি।

ভারতীয়দের সামনে সুযোগ এসেছে  ট্রফির দীর্ঘ সেই খরা ঘোচানোর।  নিজেদের দেশে ওয়ানডে বিশ্বকাপ আয়োজন করবে তারা। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হতে ১০টি দল ১০ ভেন্যুতে ৪৮ ম্যাচ খেলবে প্রায় দেড় মাসে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভ্রমণের ধকল পোহাতে হবে স্বাগতিক ভারতকেই।

রোহিত শর্মা-বিরাট কোহলিরা মূল পর্বে ৯ ম্যাচ খেলবেন ৯টি ভিন্ন শহরে। এ জন্য তাদের ৩৪ দিনে ভ্রমণ করতে হবে প্রায় ৮ হাজার ৩৬১ কিলোমিটার পথ। বিশ্বকাপ জিততে হলে আরও দূরত্ব অতিক্রম করতে হবে। তখন সেমিফাইনাল, ফাইনালসহ ৪২ দিনে ১১ ম্যাচ খেলতে দলটিকে পাড়ি দিতে হবে প্রায় ৯ হাজার ৭০০ কিলোমিটার পথ। আর এই সূচি দেখেই বেজায় খেপেছেন ভারতীয়দের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেব।

ভারত প্রথম ম্যাচ খেলবে চেন্নাইতে। তারপর তারা খেলবে দিল্লিতে। চেন্নাই থেকে দিল্লির দূরত্ব ১ হাজার ৭৬১ কিলোমিটার। বেশি ভেন্যু রাখার কারণে শুধু ভারত নয়, সব দেশকেই এমন ভোগান্তিতে পড়তে হবে। 

এক সাক্ষাৎকারে কপিল বলেন, ‘ভারতকে ১১ ম্যাচ (ফাইনালে উঠলে) খেলতে হবে। ভাবুন, ওদের কী পরিমাণ ভ্রমণ করতে হবে এই সূচি কে বানিয়েছে?’

যেহেতু ভারত তাদের ম্যাচগুলো খেলার জন্য বেশ দীর্ঘ পথ ভ্রমণ করবে, তাই তাদের জন্য চার্টার্ড ফ্লাইটের ব্যবস্থার কথাও বলেছেন ৮৩-এর বিশ্বকাপজয়ী এই অধিনায়ক। ভারতের সূচিটা যে অসামঞ্জস্যপূর্ণ তাতে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন কপিল।

তিনি বলেন, ‘আপনাকে ধর্মশালা থেকে বেঙ্গালুরু, বেঙ্গালুরু থেকে কলকাতায় যেতে হবে নয়টি আলাদা জায়গায়। বিসিসিআইয়ের উচিত খেলোয়াড়দের ভ্রমণের জন্য চার্টার্ড বিমানসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করা।’

১০ বছর ধরে বৈশ্বিক শিরোপা জিততে না পারলেও এবার ঘরের মাঠেই দীর্ঘ খরা ঘুচবে বলে আশাবাদী কপিল, ‘চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও আমরা কিন্তু ভালো খেলছি। আমরা সেমিফাইনাল, ফাইনালে উঠছি। শুধু চূড়ান্ত বাধা টপকাতে হবে।’

Link copied!