• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১, ১২ মুহররম ১৪৪৫

নতুন সবজিতে অস্বস্তি, বেড়েছে ডিমের দাম


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২, ১১:৪৩ এএম
নতুন সবজিতে অস্বস্তি, বেড়েছে ডিমের দাম

প্রতিদিন সকালে শান্তিনগর বাজারে টাটকা সবজি কিনে বাসায় ফেরেন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা হেলালুদ্দিন। শুক্রবার (৯ সেপ্টেম্বর) শান্তিনগর এলাকা থেকে সবজি কেনেন তিনি। তিনি বলেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় সবজির দাম কমেছে। তবে নতুন সবজির দাম অনেক বেশি। আলুর কেজি আগের মতোই বাড়তি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা কেজি। আঁটিপ্রতি শাকের দাম বেড়েছে ৪ থেকে ৫ টাকা পর্যন্ত।

শান্তিনগর কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা যায়, লম্বা ও গোল বেগুনের কেজি ৫০ টাকা। কিছুটা কমেছে শসার দাম। গত সপ্তাহেও শসা ছিল ৭০, তা আজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। জালি কুমড়ার পিস ৩০ টাকা, মিষ্টিকুমড়ার কেজি ২০ টাকা, কচুর ডাঁটা ৫০ টাকা। আর ক্যাপসিকামের দাম যেন আকাশচুম্বী। দাম হাঁকানো হচ্ছে কেজি সাড়ে ৫০০ টাকা।

চিচিঙ্গা আগের মতোই ৩৫-৪০ টাকায় বিক্রি হলেও ১০ টাকা বেড়ে ঝিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। বাজারে আগাম আসা শীতের সবজি ফুলকপির দাম ৪০ টাকা (৩০০ থেকে ৪০০ গ্রাম ওজনের)।

পেঁপের দাম কমেছে, কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৫ টাকায়, তবে করলা ৫০ টাকা। ঢেঁড়স ও পটোল ৩০ টাকা করে, কাঁচা কলার হালি ৩০ টাকা, লাউ ৪০ টাকায় বিক্রি হলেও বরবটি অপরিবর্তিত দাম ৬০ টাকায় বেচাকেনা হচ্ছে।

কমেনি টমেটো, গাজর ও শিমের দাম। এ তিন সবজিই বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা কেজি দরে। ধনেপাতা ১০০ কেজি দর বলা হলেও ১০০ গ্রাম ১৫ টাকা। মুলা ৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বিভিন্ন পুষ্টি উপকরণে ভরপুর সবুজ ক্যাপসিকামের দাম নিয়ন্ত্রণের বাইরে। কেজিপ্রতি দাম হাঁকানো হচ্ছে ৫৫০ টাকা। ১০০ গ্রাম ৭০ টাকা। ২৫০ গ্রাম ১৫০ টাকা।

আকাশ নামের একজন সবজি বিক্রেতা বলেন, “ক্রেতা কম। সকাল ১০টার পর জমে ওঠে শুক্রবারের সবজির বাজার। সরবরাহ বাড়ায় সবজির দাম কমেছে। কমেছে আলুর দামও।”

এদিকে ডিমের বাজারে আবারও আগুন। মাত্র তিন দিনের ব্যবধানে ডজনপ্রতি ডিমের দাম বেড়েছে ১০ টাকা। বিক্রেতাদের অভিযোগ, মুরগির ফিডের মূল্যবৃদ্ধি কারণ দেখিয়ে উৎপাদন পর্যায়ে ডিমের দাম বাড়ানো হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারে। তবে খামারিদের দাবি, সিন্ডিকেট করে এই দাম বাড়ানো হয়েছে।

ডিমের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে প্রতি ডজন ডিম ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা দুই দিন আগেও ছিল ১২০ টাকা ডজন।

ক্যাপসিকামের আকাশচুম্বী দাম সম্পর্কে বিক্রেতা জামাল হোসেন সংবাদ প্রকাশকে বলেন, “এই সবজিটা দেশে খুবই কম চাষাবাদ হয়। বেশির ভাগই আমদানিনির্ভর। দামটা তাই ওঠানামা করে। আজ কিনেই এনেছি ৫০০ টাকা কেজি। এর ক্রেতাও কম। বিক্রিও তাই কম।”

জাকির নামে আরেক বিক্রেতা জানান, পাট শাকের জোড়া আঁটি ২৫, কলমি শাক ১৫ টাকা, কচু চার আঁটি ৪০ টাকা, মুলা দুই আঁটি ৩০ টাকা, পুঁইশাক ৩০ টাকা আঁটি, লাল শাকের আঁটি ১৫, ডাঁটাশাকের আঁটি ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সকালে টাটকা শাকের ক্রেতা বেশি।

সবজি ক্রেতা হাকিম মিয়া বলেন, “সবজির দাম আর কমল কই। নতুন সবজিতে দাম বাড়তি। দিন যাচ্ছে সবজি থেকে সকল জিনিসের দাম বেড়েই চলেছে।”

Link copied!