• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সহকর্মীর সঙ্গে বন্ধুত্বে সমস্যা বাড়ে না কমে?


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: জুন ৭, ২০২৩, ১০:৫৯ এএম
সহকর্মীর সঙ্গে বন্ধুত্বে সমস্যা বাড়ে না কমে?

একই প্রতিষ্ঠানে দিনের বড় একটি সময় একসঙ্গে কাটানো ও একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে কারও কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব তৈরি হতেই পারে। কাজের চাপ, অফিস পলিটিকস, নানা অভিযোগ ইত্যাদি কারণে কাজ করার আনন্দ নষ্ট হতে পারে অনেক সময়। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধুত্বের বিষয়টি আপনাকে সহজ হতে সাহায্য করবে। তবে কর্মক্ষেত্রে ভালো বন্ধু থাকার সুবিধা ও অসুবিধা দুটিই আছে। চলুন জেনে নেওয়া যাক অফিসে বন্ধু থাকার সুবিধা ও অসুবিধা—

আনন্দ নিয়ে কাজ করা
অফিসে ভালো বন্ধু থাকলে আপনি কাজ করেও সন্তুষ্ট থাকবেন। কারণ, সহকর্মীদের সঙ্গে বন্ধন আত্মীয়তার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে এবং কর্মক্ষেত্রকে আরও আনন্দদায়ক করে তোলে। কর্মক্ষেত্রে বন্ধুদের সঙ্গ উপভোগ করলে তা প্রতিটি দিনকে আরও পরিপূর্ণ করে তুলবে, যা আপনাকে অনেক কাজের পরেও ক্লান্তি থেকে দূরে রাখবে।

মানসিক সমর্থন
অফিসের অনেক কাজের চাপে আপনার হতাশ লাগতে পারে। তাই কর্মক্ষেত্রে একজন ভালো বন্ধু থাকা ভালো। কারণ, তাতে মানসিক সমর্থন পাওয়া যায়। চ্যালেঞ্জিং বিষয়গুলোতে একসঙ্গে ঝুঁকি নেওয়া যায়। অফিসে বন্ধু থাকলে তিনি আপনাকে ভালো পরামর্শ দিয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতেও সাহয্য করতে পারবেন। সহকর্মী বন্ধু হলে তার সঙ্গে ব্যর্থতা ও সাফল্য ভাগাভাগি করা যায় নির্দ্বিধায়।

একসঙ্গে কাজ করা
সহকর্মীদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকলে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তি আরও শক্ত হয়। এটি দলগত কাজকেও উন্নত করতে পারে। কারও সঙ্গে দৃঢ় বন্ধন থাকলে তা অনেকভাবে উপকার করে। যেমন তখন আপনার কমিউনিকেশন স্কিল বৃদ্ধি পাবে, একে অপরের ক্ষমতার ওপর আস্থা রাখতে এবং নির্বিঘ্নে একসঙ্গে কাজ করার সম্ভাবনাও বাড়বে।

অফিস পলিটিকস
কর্মক্ষেত্রে ভালো বন্ধু থাকা কখনো কখনো পক্ষপাতিত্বের কারণ হতে পারে। হয়তো আপনার সহকর্মীদের মধ্য থেকে কেউ কেউ মনে করতে পারেন যে আপনি যোগ্যতার বদলে ব্যক্তিগত সম্পর্কের কারণে পদোন্নতি বা অন্যান্য সুবিধা পাচ্ছেন। এটি অনেক সময় আপনার মানসিক চাপের কারণ হতে পারে। সেই সঙ্গে কাজের ক্ষেত্রেও নেতিবাচক পরিবেশ তৈরি করতে পারে।

দ্বন্দ্ব
কর্মক্ষেত্রে গসিপে জড়িয়ে পড়ার ঝুঁকি সব সময়ই থাকে। এটি ভুল বোঝাবুঝি বা দ্বন্দ্ব তৈরি করতে পারে। এমনকি আপনার পেশাদারত্বের সুনামও নষ্ট করতে পারে। অনেক সময় বন্ধুত্ব এবং পেশাদারত্বের ভারসাম্য বজায় রাখা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। কোনো কারণে বন্ধুর সঙ্গে দ্বন্দ্ব তৈরি হয়ে গেলে তা কর্মক্ষেত্রেও বিরূপ প্রভাব ফেলবে।

সীমিত দৃষ্টিভঙ্গি
বন্ধুর সঙ্গে বেশি সময় কাটানোর ফলে অন্যান্য সহকর্মীদের সঙ্গে আপনার ভালো সম্পর্ক গড়ে ওঠার সম্ভাবনা কমতে থাকবে। এতে কর্মক্ষেত্রে অসহযোগিতার পরিমাণ বেড়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে আপনার দৃষ্টিভঙ্গিও সীমিত হয়ে আসতে পারে। কারণ, আপনি কম মানুষের সঙ্গে মেশার সুযোগ পাচ্ছেন। তাই এদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

গোপনীয়তা নষ্ট হতে পারে
অফিসে বেস্ট ফ্রেন্ড থাকলে তা আপনার ব্যক্তিগত এবং পেশাগত জীবনের মধ্যে গোলমাল তৈরি করতে পারে। আপনার বন্ধু আপনার ব্যক্তিগত অনেক কথাই জেনে থাকবেন। কোনো কারণে তা সবার সামনে চলে এলে হয়তো আপনি বিব্রত হতে পারেন। বিশেষ করে যে বিষয়গুলো আপনি সবাইকে জানাতে চান না, এমন বিষয়।

Link copied!