• ঢাকা
  • সোমবার, ২০ মে, ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

ঈদের ছুটিতে বাসা ছাড়ার আগে যে বিষয়গুলোতে সতর্ক থাকবেন


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: এপ্রিল ১৯, ২০২৩, ০৪:০৭ পিএম
ঈদের ছুটিতে বাসা ছাড়ার আগে যে বিষয়গুলোতে সতর্ক থাকবেন

যান্ত্রিক শহর থেকে কয়েক দিনের জন্য মুক্তি পাওয়ার অন্যতম ফুরসত হলো ঈদের ছুটি। আর ঈদের ছুটি মানেই হলো শিকড়ের টানে প্রকৃতির কাছে ছুটে যাওয়া। নাড়ির টান বলে কথা। কিন্তু ছুটির আনন্দে আত্মহারা হলেই হবে না। কারণ, ফিরে এসে যদি সব ঠিকঠাক না থাকে, তাহলে সব আনন্দই মাটি হয়ে যাবে। তাই এদিক-ওদিক সব যেন ঠিক থাকে, সেভাবে গুছিয়ে যাওয়াই ভালো। বেড়ানোটাও প্রশান্তির হবে। তাহলে চলুন দেখে নিই ঈদে বাড়ি যাওয়ার আগে কী কী কাজ গোছানো প্রয়োজন—

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র
বাসা ছাড়ার আগে অবশ্যই আপনার পাসপোর্ট, জমির দলিল, ভোটার আইডি কার্ড, বাচ্চার নিবন্ধনপত্র, গেজেটের কাগজপত্রও এ-জাতীয় প্রয়োজনীয় আরও যা যা রয়েছে, সবকিছু সুনির্দিষ্ট ও নিরাপদ জায়গায় রেখে যাবেন। আর সেই সঙ্গে এগুলোর একটি করে ফটোকপি নিজের কাছে রাখবেন। যাতে দুর্ঘটনাবশত প্রয়োজন হলে সমস্যায় পড়তে না হয়।

ব্যাগে যা যা নেবেন
মোবাইল ফোনের চার্জারের সঙ্গে সম্ভব হলে পাওয়ার ব্যাংকও নিয়ে নিন। মেয়েদের পিরিয়ড হওয়ার সম্ভাবনা থাকুক বা না থাকুক, সঙ্গে স্যানিটারি ন্যাপকিন নিতে ভুলবেন না। ছোট বাচ্চা নিয়ে বেড়াতে গেলে সন্তানের জন্য বাড়তি পরিমাণ ডায়াপার সঙ্গে রাখুন। জীবাণুনাশক তরল, ব্যান্ডেজ, তুলা, স্যালাইন, ওষুধ, ছাতা, রেইনকোট, টর্চলাইট, দড়ি, রোদচশমা, টুপি ইত্যাদিও ব্যাগের এক কোনায় রেখে দিন।

ঘর চেক করুন
শুধু নিজের কাপড়ের লাগেজ ও দরকারি জিনিসপত্র নিয়ে ছুটলেই হবে না। বের হওয়ার আগে অবশ্যই ঘরের বৈদ্যুতিক সুইচ, গ্যাসের লাইন, ওয়াশিং মেশিন, এসি, কম্পিউটার, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ইনডাকশন চুলা, পানির কল ইত্যাদি বন্ধ আছে কি না, ভালো করে চেক করে নিন।

গাছে পানি দিতে হবে
গাছের গোড়ায় কয়েক স্তরে নারকেলের ছোবড়া বিছিয়ে বেশি করে পানি দিয়ে রাখুন। এতে গাছ পানি শোষণ করে নেবে। সেই সঙ্গে একটি প্লাস্টিকের বোতলে পানি ভর্তি করে ওপর থেকে ঝুলিয়ে দিন। পানিভর্তি বোতলের নিচের অংশে ছোট ছিদ্র করে দিন যেন প্রতি ২-৩ সেকেন্ড সময়ে এক ফোঁটা করে পানি পড়ে গাছের গোড়ায়। এমনি করে একটি বোতলের পানি শেষ হতে প্রায় ৩-৪ দিন সময় লেগে যাবে। তাতে করে গাছ সহজে পানির অভাব বোধ করবে না।

পোষা প্রাণী
পোষা প্রাণী থাকলে সঙ্গে করে নিয়ে চলুন অথবা নির্ভরযোগ্য কারও কাছে রেখে যান। সেটিও সম্ভব না হলে পোষা প্রাণীদের কিছু কেয়ার সেন্টার রয়েছে, সেখানে তাকে রেখে যেতে পারলে আপনিও নিশ্চিন্ত থাকতে পারবেন।

ঘর গুছিয়ে রাখুন
যেহেতু অনেক দিন ঘরে থাকবেন না। নানা রকম পোকামাকড় আশ্রয় নিতে পারে তাই যথাসম্ভব ঘর ঘুছিয়ে রুম স্প্রে করে তারপর বের হোন। এতে করে যখন বাসায় ফিরবেন গোছানো ঘর দেখেও অন্য রকম এক প্রশান্তি কাজ করবে আপনার মনে।

বাসার নিরাপত্তা 
সবকিছুর আগে বাসার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। আলমারি, ওয়ার্ডরোব, দরজা-জানালা ঠিকঠাক বন্ধ করছেন কি না এবং বাসার ভেন্টিলেশনগুলো ঠিক আছে কি না, কয়েকবার করে চেক করুন। বাসা থেকে বের হওয়ার আগে প্রতিটি ঘরের একটি ছবি তুলে নিন। বাড়ি ফিরে কোনো অসংগতি চোখে পড়লে যেন সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়া যায়।

কিছু বাড়তি সতর্কতা

  • এমনকি বাড়ি থেকে ফিরে এসে চুলা জ্বালানোর আগে বাসার দরজা-জানালা খুলে দিন। এতে বাসার ভেতরে গ্যাস জমে থাকলেও বের হয়ে যাবে। 
  • যদি বাসার প্রহরী থাকে, তার সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন প্রতিদিন অন্তত একবার।
  • সম্ভব হলে ফ্রিজ খালি করে রেখে যাওয়ার চেষ্টা করুন। যেহেতু বেশ কয়েক দিন বাসায় থাকা হবে না তাই ভেতরের জিনিস নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
  • অতিমূল্যবান জিনিস যেমন সোনার গয়না, ক্যাশ টাকা, এটিএম কার্ড সঙ্গে রাখুন।  
  • ডাস্টবিন খালি করে রাখুন।
  • জানালা পর্দা দিয়ে ঢেকে রাখুন।
Link copied!