• ঢাকা
  • মঙ্গলবার, ২৫ জুন, ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১,

চট্টগ্রাম টেস্টে ৮ উইকেটে হারল বাংলাদেশ


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: নভেম্বর ৩০, ২০২১, ১১:৩৮ এএম
চট্টগ্রাম টেস্টে ৮ উইকেটে হারল বাংলাদেশ

হারের বৃত্ত থেকে বের হতেই পারছে না বাংলাদেশ। পাকিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজের ধবলধোলাই হওয়ার পর চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টেও হারল মুমিনুল হকের দল। পাকিস্তানি ব্যাটারদের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের দেওয়া ২০২ রানের লক্ষ্য ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেটের জয় পেয়েছে পাকিস্তান। টেস্টের পঞ্চম দিনের প্রথম সেশনেই জয় পেলেন বাবর আজমরা। 

নিজেদের ব্যাটিং ব্যর্থতা থেকে বের হতেই পারছে না বাংলাদেশ। বিশেষ করে ওপেনিং জুটি বেশি ভোগাচ্ছে টাইগারদের। চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে লিটন দাসের ১১৪ ও মুশফিকুর রহিমের ৯১ রানে ভর করে স্কোরবোর্ডে ৩৩০ রান করেছিল বাংলাদেশ। পাকিস্তানের হয়ে ৫ উইকেট নিয়েছিলেন হাসান আলী। 

নিজেদের প্রথম ইনিংসে আবিদ আলীর ১৩৩, আবদুল্লাহ শফিকের ৫২ ও ফাহিম আশরাফের ৩৮ রানে ভর করে ২৮৬ রান করে পাকিস্তান। বাংলাদেশের হয়ে ৭ উইকেট নেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম।

প্রথম ইনিংসে ৪৪ রানের লিড পেয়েও তার ভালো ব্যবহার করতে পারেনি বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ওপেনিং ব্যর্থতা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় বাংলাদেশকে। আগের ইনিংসের মতো দুর্দান্ত ৫৯ রানের ইনিংস খেলেন লিটন দাস।

এছাড়া অভিষেক টেস্টেই ইনজুরিতে পড়া ইয়াসির আলীর ব্যাট থেকে আসে ৩৬ রান। সব মিলিয়ে ১৫৭ রানে অলআউট হলে লিডসহ পাকিস্তানের সামনে লক্ষ্যে দাঁড়ায় ২০২ রান। এই ইনিংসে পাকিস্তানের হয়ে পাঁচ উইকেট শিকার করেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। স্পিনার সাজিদ খান নিয়েছেন তিন উইকেট।

২০২ রানের লক্ষ্যে নেমে দুর্দান্ত শুরু পায় পাকিস্তানের ওপেনিং জুটি। পাকিস্তানের ওপেনিং জুটি ভাঙতে প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও বেশ বেগ পোহাতে হয়েছে বাংলাদেশকে। প্রথম ইনিংসে ১৪৫ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও ১৫১ রানের জুটি গড়েন আবদুল্লাহ শফিক ও আবিদ আলী।

১০৯ রানের জুটি গড়ে টেস্টের চতুর্থ দিন শেষ করেছিল পাকিস্তান। পঞ্চম দিনের প্রথম সেশনে ১৫১ রানের জুটি ভাঙেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৭৩ রানে আউট হন আবদুল্লাহ শফিক। প্রথম পাকিস্তানি ব্যাটার হিসেবে অভিষেক টেস্টের দুই ইনিংসেই ফিফটির রেকর্ড গড়েন শফিক। আগের ইনিংসে সেঞ্চুরি করা ওপেনার আবিদ আলী এই ইনিংসে আউট হয়েছেন নড়বড়ে নব্বইয়ে। ৯১ রান করে তাইজুল ইসলামের বলে এলবিডব্লিউ হয়েছেন তিনি। 

তিনে নেমে আজহার আলীর অপরাজিত ২৪* ও অধিনায়ক বাবর আজমের ১৩* রানে ভর করে ৮ উইকেটের সহজ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাকিস্তান। 

১১৩ ও ৯১ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হয়েছেন আবিদ আলী। পাকিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্ট হবে ৪ ডিসেম্বর। মিরপুরের শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি।

Link copied!