• ঢাকা
  • বুধবার, ১৯ জুন, ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১, ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: মে ২৩, ২০২৪, ০৬:৫৪ পিএম
বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ
বাজেটে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ। প্রতীকী ছবি

আগামী ২০২৪-২৫ অর্থবছরে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হতে পারে। এ ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ কর দিয়ে অবৈধ অর্থ-সম্পদ বৈধ করার সুযোগ থাকছে বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) একটি সূত্র জানিয়েছে। এছাড়াও আগামী বাজেটে কর বাড়ছে পাঁচ শতাংশ।

এনবিআরের সূত্রগুলো বলছে, এ পর্যন্ত সব মিলিয়ে অপ্রদর্শিত প্রায় ৪৭ হাজার কোটি টাকা ঘোষণায় এসেছে, অর্থাৎ সাদা হয়েছে। জিয়াউর রহমান ও জেনারেল এরশাদের ১৫ বছরে মাত্র ৯৫ কোটি টাকা সাদা হয়। আওয়ামী লীগের শেষ তিন মেয়াদে (২০০৯-২৩) প্রায় ৩৩ হাজার কোটি টাকা বৈধ হয়েছে।

এর আগে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে বিদেশে পাচার করা অর্থ মাত্র সাত শতাংশ কর দিয়ে ফিরিয়ে আনার সুযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু একজনও সে সুযোগ গ্রহণ করেননি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনায় টালমাটাল অর্থনীতির গতি পুনরুদ্ধারে ২০২০-২১ অর্থবছরে সরকারের নানা উদ্যোগের পাশাপাশি ১০ শতাংশ কর দিয়ে অবৈধ সম্পদ বৈধ করার সুযোগ দেয় এনবিআর। বিধান করা হয়, সুযোগ গ্রহণকারীরা কোথাও প্রশ্নের মুখে পড়বেন না। এনবিআরের হিসাবে, তখন লুকানো ফ্ল্যাট, টাকা ও বিনিয়োগ কর নথিতে দেখান ১১ হাজার ৮৫৯ জন। বৈধ হয় প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা। এতে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার কর আসে।

ডলার সংকট, ঋণখেলাপিসহ নানা সংকটে দেশের অর্থনীতি। খরচ মেটাতে সরকারের যেমন দরকার বাড়তি টাকা, অর্থনীতিতেও অর্থের প্রবাহ বাড়ানো দরকার। তাই আবারো সম্পদ বৈধ করার সুযোগ অবারিত করতে চায় এনবিআর।

কর্মকর্তারা জানান, ১৫ শতাংশ কর দিয়ে গোপন ফ্ল্যাট, নগদ টাকা, সঞ্চয়পত্র আয়কর রিটার্নে দেখানোর সুযোগ দেওয়া হতে পারে। সুযোগ গ্রহণকারীরা আইনি জটিলতায় পড়বেন না, এমন নিশ্চয়তাও থাকতে পারে।

Link copied!