• ঢাকা
  • বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৮ মুহররম ১৪৪৫

‘জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে উৎপাদন ব্যাহত হবে’


সংবাদ প্রকাশ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: আগস্ট ৬, ২০২২, ১১:১০ এএম
‘জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে উৎপাদন ব্যাহত হবে’

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ফলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ এবং শিল্প উৎপাদন ব্যাহত হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রসঙ্গে শনিবার (৬ আগস্ট) এমন মন্তব্য করেন তিনি।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব বলেন, “জ্বালানি তেলের দাম এক লাফে প্রায় ৫০ শতাংশের কাছাকাছির বাড়ানোর ফলে শিল্প উৎপাদন ব্যাহত হবে। ফলে আমদানির ওপর নির্ভরশীলতা বাড়বে।”

মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, “জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ফলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসবে।”

পরিবহন খাতে অস্থিরতা দেখা দেবে উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, “পরিবহন ব্যয় দ্বিগুণ হওয়ার পাশাপাশি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যমূল্য সাধারণ মানুষের সামর্থ্যের বাইরে চলে যাবে।”

প্রতিযোগিতায় টিকতে না পেরে অনেক ছোট ছোট শিল্প-কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

অর্থনীতির বিষয়টি উল্লেখ করে যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব আরও বলেন, “আমদানি ব্যয় বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে জাতীয় অর্থনীতি ওপর চাপ আরও বাড়বে। অন্যদিকে বেকারত্ব সমস্যা আরও প্রকট হবে।”

মোজাম্মেল হক চৌধুরী আরও বলেন, “আমাদের দেশে সাধারণত তেলের দাম যে পরিমাণ বাড়ে তার থেকে কয়েক গুণ বেশি বাড়ে বাস ও অন্যান্য গণপরিবহন ভাড়া। পণ্য পরিবহন ভাড়াও ইচ্ছেমতো বাড়িয়ে দেয় ট্রাক-কভার্ড ভ্যান মালিকেরা।

রাস্তায় দাঁড়িয়ে যাত্রীরা

শনিবার সকাল থেকে রাজধানীর সড়কে বাস চলাচল কম। রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকেই বাস পাচ্ছেন না যাত্রীরা।

রাজধানীর মাজার রোড ও টেকনিক্যাল মোড়ে বাসের অপেক্ষায় যাত্রীদের দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। অনেকক্ষণ পরে কোনো বাস এলে তাতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছিলেন যাত্রীরা। কিন্তু বাসগুলো আগে থেকে যাত্রীতে পূর্ণ। বাসের পাদানিতেও অনেক দাঁড়িয়ে ছিলেন।

জয়নাল আবেদীন সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে যাওয়ার জন্য স্ত্রী নিয়ে বের হন। বাসা থেকে টেকনিক্যাল মোড় পর্যন্ত রিকশায় এসেছেন। বাস পাচ্ছেন না। একটা বাসে দুজনের ভাড়া চেয়েছে ৬০ টাকা। বর্তমানে এই দূরত্বের সরকার নির্ধারিত ভাড়া জনপ্রতি ১০ টাকা।

প্রভাতী পরিবহনের (বাস) একজন চেকার বলেন, “প্রতিদিন তাদের ৬০টি বাস চলে। আজ ১০টিও নেই। সরকার আগে বাস ভাড়া ঠিক না করে তেলের দাম বাড়ানোতেই সমস্যা। আজকের মধ্যে ভাড়া ঠিক না করা হলে আগামীকাল রোববার বাসে বাসে যাত্রীদের সঙ্গে মারামারি লাগব।”

জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বৃদ্ধি

বৈশ্বিক পরিস্থিতির কথা জানিয়ে দেশে জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বাড়িয়েছে সরকার।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের শুক্রবার সন্ধ্যার প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে হবে ১১৪ টাকায়।

অন্যদিকে অকটেনের দাম লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন কিনতে ১৩৫ টাকা ‍গুনতে হবে।

এর বাইরে লিটারপ্রতি ৪৪ টাকা বাড়ানো হয় পেট্রলের দাম। এখন থেকে জ্বালানিটির প্রতি লিটার ১৩০ টাকা।

শতকরা হিসাবে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয় ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। আর অকটেন ও পেট্রলের দাম বৃদ্ধি করা হয় ৫১ শতাংশ।

জ্বালানি তেলের বর্ধিত এ দাম কার্যকর হয় শুক্রবার মধ্যরাত থেকে। এর আগেই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জ্বালানি তেল নিতে পেট্রল পাম্পে ভিড় জমান গাড়িচালকরা, তবে অনেক জায়গায় বন্ধ করে দেওয়া হয় পেট্রল পাম্প।
 

Link copied!