• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ জুন, ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১, ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

কী কী কৌশল মেনে চললে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: মে ২৮, ২০২৪, ১২:২৭ পিএম
কী কী কৌশল মেনে চললে বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে
ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী ও ডিভাইস যখন অব্যবহৃত থাকে, তখন সেগুলোর প্লাগ খুলে রাখা উচিত। ছবিঃ সংগৃহীত

প্রতিদিনের জীবনযাপনে আমরা অনেকাংশে বিদ্যুতের ওপর নির্ভরশীল। যে কারণে বেড়েই চলেছে বিদ্যুৎ খরচের পরিমাণ। আবার আমাদের কিছু ভুলের কারণেও বাড়ে বিদ্যুৎ বিল। তাই মাসিক খরচ নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিদ্যুতের ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। একটু সতর্ক থাকলে বাড়তি বিদ্যুৎ খরচ এড়ানো সম্ভব।

আনপ্লাগ করে রাখা
মোবাইল চার্জার থেকে খোলার পর সুইচ বন্ধ করার অভ্যাস নেই অনেকেরই। এই ভুলে বাড়ে বিদ্যুতের বিল। এসির ক্ষেত্রেও রিমোট দিয়ে বন্ধ করার পর সুইচ বন্ধ করি না অনেক সময়। এতেও অতিরিক্ত ইউনিট পোড়ে। আবার ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী ও ডিভাইস যখন অব্যবহৃত থাকে, তখন সেগুলোর প্লাগ খুলে  রাখা উচিত। অনেক ডিভাইস স্ট্যান্ডবাই মোডে থাকা সত্ত্বেও কিংবা বন্ধ করলেও বিদ্যুৎ খরচ করতে থাকে।

এনার্জি সেভিং বাল্ব ব্যবহার
এনার্জি সেভিং বাল্ব ব্যবহার করলে তা ৭৫% পর্যন্ত বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে সাহায্য করে। এগুলো সাধারণ বাল্বের তুলনায় ছয়গুণ বেশি চলে। সাধারণ বাল্বে আলোর জন্য ফিলামেন্ট ব্যবহৃত হয়, অন্য দিকে এলইডি আলোয় থাকে সার্কিট। ফিলামেন্টের তুলনায় সার্কিটে বিদ্যুতের খরচ অনেকটাই কম হয়। বাড়ি বা অফিসের পুরানো বাল্ব বদলে এনার্জি সেভিং বাল্ব ব্যবহার করুন। পুরনো বাল্ব হলে তা বিদ্যুৎ বেশি খরচ করে।

এসি ব্যবহারে সতর্ক হতে হবে
বার বার এসি চালু ও বন্ধ করবেন না। যত বার এসি বন্ধ করে চালাবেন, তত বেশি ইউনিট পোড়ে। এসির তাপমাত্রা ২৪ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে রাখাই সবচেয়ে ভাল। বাড়ির শীতাতপ নিয়ন্ত্রণের যন্ত্রে এনার্জি সেভার মোড থাকলে, তা ব্যবহার করবেন। একইসঙ্গে এসি নিয়মিত পরিষ্কার করুন এবং সার্ভিসিং করান। অনেক সময় দীর্ঘদিন সার্ভিসিং না করালে এসি বেশি বিদ্যুৎ খরচ করে।

মিটার নিয়মিত পরীক্ষা করুন
কত ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন তা নিয়মিত মিটারে পরীক্ষা করুন। যদি দেখেন স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি বিদ্যুৎ খরচ হচ্ছে, তাহলে মিটার ঠিকমতো কাজ করছে কি না তা যাচাই করুন। অনেক সময় মিটারের যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ভুল রিডিং আসে।

বিদ্যুৎ ব্যবহারে সময় নিয়ে সতর্ক হোন
পিক আওয়ারে (বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা) বিদ্যুৎ ব্যবহার না করে অফ-পিক আওয়ারে যেকোনো বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার বিল কমানোর একটি কার্যকর কৌশল।

ফ্রিজ ব্যবহারে কিছু নিয়ম মেনে চলুন
দিনে এক ঘণ্টা করে বন্ধ রাখুন ফ্রিজ। যন্ত্রও বিশ্রাম পাবে, বিদ্যুৎও বাঁচবে। ফ্রিজের ভিতর ঠান্ডা থাকায় এই এক ঘণ্টায় খাবারদাবারও নষ্ট হওয়ার ভয় নেই। ফ্রিজে খুব গরম খাবার রাখবেন না। একটু ঠান্ডা করে তার পর তুলুন ফ্রিজে। তাতে বিদ্যুৎ খরচ কম হবে।

বৈদ্যুতিক সামগ্রী নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ করুন
বাড়িতে ব্যবহৃত বৈদ্যুতিক যন্ত্রের মধ্যে এসি মেশিন, মাইক্রোওয়েভ ভেন, ফ্রিজ, গিজ়ার, বিদ্যুতের খরচ অনেকটাই বাড়িয়ে দেয়। নিয়ম করে সব যন্ত্রেরই সার্ভিসিং করান সময় মতো। এতে যন্ত্র ভাল থাকে ও কম বিদ্যুৎ টানে। সামান্য টাকা বাঁচাতে সার্ভিসিং করান না অনেকে। এতে কিন্তু পরবর্তী সময় খরচটা উল্টে অনেক বেশি পড়ে যায়।

বিদ্যুৎ সংযোগ পরীক্ষা
পুরনো বৈদ্যুতিক যন্ত্র তুলনামূলক ভাবে বিদ্যুতের খরচ বা়ড়ায়। তাই বেশি পুরনো (দশ বা পনেরো বছরের) বৈদ্যুতিক যন্ত্র ব্যবহার না করে ভালো যন্ত ব্যবহার করুন।

সাশ্রয়ী অভ্যাস গড়ে তুলুন
অনেকেই রুম থেকে চলে যাওয়ার সময় লাইট ও ফ্যান বন্ধ করতে ভুলে যাই। এই অপচয়ের অভ্যাস পরিবর্তন করে সাশ্রয়ী জীবনযাপনে অভ্যস্ত হতে পারলে অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা সম্ভব।

সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহার করুন
সৌরবিদ্যুৎকে প্রাথমিকভাবে ব্যয়বহুল মনে হতে পারে। তবে যদি এটিকে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ হিসাবে বিবেচনা করেন, তাহলে অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয় করবে আর খরচও বাঁচবে অনেক। সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহারের আরেকটি সুফল হচ্ছে আপনাকে জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুতের ওপর নির্ভর করতে হবে না। সৌরবিদ্যুৎ পরিবেশবান্ধব জ্বালানি। 

Link copied!