• ঢাকা
  • শুক্রবার, ০১ মার্চ, ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০, ১৯ শা’বান ১৪৪৫

উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় ইয়েভগেনি প্রিগোশিনের মৃত্যুর শঙ্কা


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: আগস্ট ২৪, ২০২৩, ০৮:৫০ এএম
উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় ইয়েভগেনি প্রিগোশিনের মৃত্যুর শঙ্কা
ভাগনার প্রধান ইয়েভগেনি প্রিগোশিন (ছবি : বিবিসি)

রাশিয়ায় একটি ব্যক্তিগত উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়েছে। বিধ্বস্ত উড়োজাহাজে ভাড়াটে যোদ্ধা সরবরাহকারী ভাগনার গ্রুপের প্রধান ইয়েভগেনি প্রিগোশিন ছিলেন বলে জানিয়েছে রাশিয়া। ধারণা করা হচ্ছে, এ দুর্ঘটনায় ইয়েভগেনি প্রিগোশিন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় বুধবার (২৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় মস্কোর উত্তরের একটি এলাকায় উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয় বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

রাশিয়ার জরুরি পরিস্থিতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, উড়োজাহাজটি মস্কো থেকে সেন্ট পিটার্সবার্গ শহরে যাচ্ছিল। তাতে ৩ জন ক্রুসহ ১০ আরোহী ছিলেন। যাত্রীদের তালিকায় ভাগনারপ্রধান প্রিগোশিনের নামও রয়েছে। প্রাথমিক তথ্যমতে, আরোহীদের সবাই নিহত হয়েছেন।

ভাগনার গ্রুপ-সংশ্লিষ্ট টেলিগ্রাম চ্যানেল গ্রে জোন থেকে জানানো হয়েছে, মস্কোর উত্তরের টিভিয়ের এলাকায় আকাশ প্রতিরক্ষাব্যবস্থার ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হয়।

ভাগনারপ্রধান রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে দেশটিতে রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধ করছিলেন ভাগনার সেনারা। তবে রুশ সামরিক নেতৃত্বের প্রতি অসন্তোষ ছিল প্রিগোশিনের। সেই অসন্তোষের প্রেক্ষাপটে ২৩ জুন বিদ্রোহ করে বসেন প্রিগোশিন। রাশিয়ার সামরিক নেতৃত্বকে উৎখাতের জন্য ইউক্রেন সীমান্ত থেকে মস্কোর দিকে অভিযান শুরু করেন তিনি। পথে কয়েকটি শহর নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেন ভাগনারের যোদ্ধারা।

প্রিগোশিনের বিদ্রোহের জেরে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েন। পরবর্তী সময়ে বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেকসান্দার লুকাশেঙ্কোর মধ্যস্থতায় অভিযান বন্ধের ঘোষণা দেন প্রিগোশিন।

Link copied!