• ঢাকা
  • সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১, ৮ মুহররম ১৪৪৫

গরমে আর হজ নয়, পাল্টে যাচ্ছে সূচি


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২৪, ০৬:৩৫ পিএম
গরমে আর হজ নয়, পাল্টে যাচ্ছে সূচি
হজযাত্রীরা। ছবি: সংগৃহীত

সৌদিতে তীব্র তাপপ্রবাহের কারণে চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ১ হাজার ৮১ জন হজযাত্রী। বহু হজযাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন। অতীতে এত প্রাণহানি বা নিখোঁজের ঘটনা কখনও ঘটেনি। যা চিন্তায় ফেলে দিয়েছে সৌদি সরকারকে।

তবে সুখবর হচ্ছে, আগামীতে তীব্র তাপপ্রবাহ থাকে যে মৌসুমে তা এড়িয়ে হজের সময় নির্ধারণ করা হবে। ফলে পবিত্র এই ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের সময় মৃত্যু অনেক কমে যাবে।

মধ্যপ্রাচ্য ও আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থাগুলো চলতি সপ্তাহে এ ব্যাপারে বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। যেখানে দাবি করা হয়েছে, ২০২৫ সালের হজ গ্রীষ্মকালে অনুষ্ঠিত হলেও পরবর্তী হজের সময় সূচি বদলে যাবে।

মধ্যপ্রাচ্যের সংবাদমাধ্যম গালফ নিউজের বরাতে লাইভমিন্টের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা বিশ্ব থেকে মুসল্লিরা ২০২৫ সালে গ্রীষ্মকালীন শেষ হজ পালন করতে যাচ্ছেন। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এর পরের বছর ২০২৬ সালে হজের আনুষ্ঠানিকতা হবে বসন্ত ঋতুতে। যখন তীব্র তাপপ্রবাহ থাকবে না।

সৌদির শূরা কাউন্সিলের সদস্য এবং জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক গবেষক ড. মনসুর আল মাজরুই সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, “হজের মৌসুম ২০২৫ সালের গ্রীষ্ম মৌসুমের সঙ্গে মিলে যাবে। পরবর্তী আট বছর হজ পালিত হবে বসন্ত মৌসুমে। এরপর শীত মৌসুমে চলে যাবে।”

কীভাবে ঘটবে?
সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া কেন্দ্রের (এনএমসি) মুখপাত্র হুসেইন আল-কাহতানি বলেছেন, “ঋতুকালীন উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনের ফলে ইসলামিক চন্দ্রমাসের ক্যালেন্ডার অনুযায়ী হজের তারিখ প্রতি বছর প্রায় ১০ দিন করে পিছিয়ে যায়। হজ যাত্রার সময় পরিবর্তিত হলে, এটি হজযাত্রীদের প্রচণ্ড গরম থেকে বড় স্বস্তি দেবে।

সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া কেন্দ্রের মুখপাত্র রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম সৌদি গেজেটকে বলেছেন, “আমরা ১৭ বছর পর আর গ্রীষ্মকালীন হজ প্রত্যক্ষ করবো না। চন্দ্রমাসের হিসেবে, হজ আরামদায়ক বসন্ত ও শীত ঋতুতে চলে যাবে।”

চলতি তাপপ্রবাহে মৃত্যু
সৌদি আরবের জাতীয় আবহাওয়া কেন্দ্র জানিয়েছে, চলতি সপ্তাহে মক্কার মসজিদুল হারামে তাপমাত্রা ৫১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠে যায়। তীব্র গরমের কারণেই এবার সহস্রাধিক হজযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরব কূটনীতিকরা ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, তীব্র গরমে এখন পর্যন্ত মিশরের মোট ৬৫৮ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে ৬৩০ জনই অনিবন্ধিত ছিলেন। মিশর থেকে এ বছর ৫০ হাজার ৭৫২ জন নিবন্ধিত হয়ে হজ করেছেন।

বাংলাদেশি হাজিদের মৃত্যু
চলতি বছর হজ করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত ৩১ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজবিষয়ক প্রতিদিনের বুলেটিনে ২০ জুন এ তথ্য জানানো হয়েছে। এর মধ্যে ২৫ জন পুরুষ ও ছয়জন নারী। মক্কায় মৃত্যু হয়েছে ২৪ জনের। মদিনায় ৪, জেদ্দায় ১, মিনায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। 
 

Link copied!