• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কিনছে জার্মানি


সংবাদ প্রকাশ ডেস্ক
প্রকাশিত: জুন ১৫, ২০২৩, ০৩:১৪ পিএম
ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কিনছে জার্মানি

ইসরায়েলের কাছ থেকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের ওপরে দূরপাল্লার অ্যারো-৩ সিস্টেম ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রকেও ধ্বংস করে দিতে পারে, এমন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষাব্যবস্থা কিনছে জার্মানি। ফলে শুধু জার্মানি উপকৃত হবে তাই নয়, প্রতিবেশী দেশগুলোও লাভবান হবে বলে জানিয়েছে দেশটি।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুন) জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। এতে বলা হয়, বুধবার জার্মান পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের বাজেট কমিটি প্রাথমিকভাবে ইসরায়েলকে যে অর্থ দিতে হবে, তা অনুমোদন করেছে। প্রাথমিকভাবে জার্মানি ৫৬ কোটি ইউরো দেবে এই ডিফেন্স সিস্টেম কেনার জন্য।

কয়েক বছর ধরে জার্মানি তার প্রতিরক্ষাব্যবস্থায় যথেষ্ট অর্থ ব্যয় করেনি। কিন্তু ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন দেখিয়ে দিয়েছে, ইউরোপের প্রতিরক্ষাব্যবস্থায় কতটা ঘাটতি রয়েছে। বিশেষ করে ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা হলে উপযুক্ত এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম অনেক দেশের কাছেই নেই।

ইউক্রেন যুদ্ধের পর জার্মান চ্যান্সেলর শলৎস এক শ কোটি ইউরোর একটা তহবিল গঠন করেন। সেখান থেকেই অ্যারো-৩ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থার প্রাথমিক খরচ জোগানো হবে।

বার্লিন চায়, অ্যারো-৩ কেনা নিয়ে সরাসরি ইসরায়েল সরকারের সঙ্গে চুক্তি করতে। কিন্তু পরে যদি কোনো কারণে এই চুক্তি বাস্তবায়িত না হয়, তাহলে জার্মানি আর অগ্রিম অর্থ ফেরত পাবে না বলে জানানো হয়েছে। তবে সবকিছু ঠিক থাকলে চলতি বছরের শেষে চুক্তি হবে।

বার্লিনের আশা, ২০২৫ সালের শেষ দিকে তারা অ্যারো-৩ সিস্টেম হাতে পেয়ে যাবে। অগ্রিম অর্থ নিয়ে ইসরায়েল উৎপাদন প্রক্রিয়া শুরু করবে।

এক সংবাদ সম্মেলনে শলৎস বলেছেন, জার্মানি একটা বড় প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করছে, যা শুধু একা জার্মানির সঙ্গে যুক্ত নয়। শলৎসকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, এই ক্ষেত্রে অগ্রিম অর্থ দেওয়া কি ঝুঁকিপূর্ণ নয়?

শলৎসের জবাব, “আমরা ছোট ছোট পদক্ষেপ নিয়ে এগোচ্ছি। আমি মনে করি, সবকিছু মসৃণভাবে চলবে।”

Link copied!