• ঢাকা
  • সোমবার, ২০ মে, ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার


সাতক্ষীরা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: জুন ১৪, ২০২৩, ১১:৫১ এএম
স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

সাতক্ষীরার শ্যামনগরে বিয়ের প্রলোভনে এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ এবং ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে শহীদুল ইসলাম আবীর ওরফে আবিয়ার রহমান (৫০) নামের এক ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৩ জুন) শ্যামনগর উপজেলার পশ্চিম পোড়াকাটলা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার শহীদুল ইসলাম শ্যামনগর উপজেলার পশ্চিম পোড়াকাটলা গ্রামের শফিকুল ইসলাম সরদারের ছেলে ও বুড়িগোয়ালিনি ইউপি সদস্য।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নানী জানান, তার নাতনি অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। বাড়িতে যাতায়াতের সুযোগে ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম তার নাতনিকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর রাত ৯টার দিকে ধর্ষণ করেন। এ সময় ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করেন দাঁতিনাখালি গ্রামের শহীদুল্লাহ গাজীর ছেলে হাসানুল ইসলাম ওরফে সামছুদ্দিন। এ ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে শহীদুল ইসলাম তার নাতনিকে প্রায়ই ধর্ষণ করতেন। একপর্যায়ে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে শহীদুল শ্যামনগর সদরের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত ঘটায়। বিষয়টি তিনি জানতে পেরে শহীদুল ইসলামকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কিন্তু বিয়ের আশ্বাস দিয়ে দিনের পর দিন টালবাহানা করায় সোমবার তিনি থানায় অভিযোগ করেন।

শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বাদল জানান, ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে স্কুলছাত্রীর নানী বাদী হয়ে সোমবার থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও পর্নোগ্রাফি আইনে একটি মামলা করেছেন। মামলায় ইউপি সদস্য শহীদুল ইসলাম, হাসানুল ও আবু নাঈমকে আসামি করা হয়েছে। শহীদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। শহীদুল ইসলামের কাছ থেকে নগ্ন ভিডিওসহ তার মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে।

Link copied!