• ঢাকা
  • সোমবার, ২০ মে, ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১,

ঈদ অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যানকে আমন্ত্রণ না করায় হামলা, আহত ৬


নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত: এপ্রিল ২৩, ২০২৩, ০৪:০৪ পিএম
ঈদ অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যানকে আমন্ত্রণ না করায় হামলা, আহত ৬

নাটোরের সিংড়া উপজেলায় ঈদের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ না করায় কয়েকজনকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে কলম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মইনুল হক চুনুর বিরুদ্ধে।

শনিবার (২১ এপ্রিল) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার কলম ইউনিয়নের নুরপুর বাজারে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় আহতরা হলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য ইমদাদুল হক বাবলু (৬৬), আওয়ামী লীগ কর্মী আসাদুজ্জামান ভুট্টু (৩৭), কাজল হোসেন (৩৬), হিরা (৩৭), মিন্টু (৩৫) ও আলেক খান (৪২)।

আহতদের প্রথমে সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনজনকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এদিকে এ ঘটনায় আহতদের দেখতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঈদ উপলক্ষে উপজেলার কলম ইউনিয়নের নূরপুর-কৃষ্ণপুর স্কুলমাঠে স্থানীয়ভাবে খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য ইমদাদুল হক বাবলু। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ না করায় আয়োজকদের সঙ্গে তর্কে জড়ান কলম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মইনুল হক চুনুর সমর্থকরা। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানের লোকজন তাদের মারধর করেন।

সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আরিফুল ইসলাম বলেন, “এখন পর্যন্ত ৬ জনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগ নেতা ইমদাদুল হক বাবলুসহ তিনজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) পাঠানো হয়েছে।”

এ বিষয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লা আল মামুন বলেন, “ঈদের দিন এই ধরনের হামলা দুঃখজনক। গতবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার ভোটের জের এবং অনুষ্ঠানে চেয়ারম্যান মইনুল হক চুনুকে দাওয়াত না করায় এই হামলা হয়েছে। চেয়াম্যান মইনুল এই হামলার নেতৃত্ব দিয়েছেন।”

অভিযোগের বিষয়ে কলম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মইনুল হক চুনু বলেন, “ছোট ছোট ছেলে-পেলেদের ধাক্কাধাক্কি থেকে এই ঘটনা ঘটেছে। এখানে ইউপি নির্বাচনের কোনো রেশ নেই।”

সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, “দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।”

Link copied!