• ঢাকা
  • শুক্রবার, ২৬ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১, ১৯ মুহররম ১৪৪৫

আকাশে উড়ল ৩৫০টি মুনিয়া, টিয়া ও শালিক


ফেনী প্রতিনিধি
প্রকাশিত: আগস্ট ২৮, ২০২২, ০৯:০৯ পিএম
আকাশে উড়ল ৩৫০টি মুনিয়া, টিয়া ও শালিক

ফেনীতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সংগ্রহ করে অবৈধভাবে বিক্রির জন্য আটক রাখা ৩৫০টি পাখি উদ্ধার করেছে বনবিভাগ। এ সময় দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন, মো. আজাহার আলী শিকদার (৩০) ও মো. রাসেল শিকদার (২৮) খুলনার সোনাকান্দা থানার আতাহার আলী সিকদার ছেলে। তারা ফেনী পৌরসভার চাড়িপুর ১২ নম্বর ওয়ার্ডের দুলাল মিয়ার কলোনির একজন ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করেন।

উদ্ধার পাখীগুলো স্থানীয় কাজিরবাগ ইকোপার্কে অবমুক্ত করা হয়েছে। 
রোববার (২৮ আগস্ট) দুপুরে এসব পাখী উদ্ধার ও অবমুক্ত করা হয়।

সামাজিক বন বিভাগের ফেনী সদর রেঞ্জ কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র ভৌমিক জানায়, গোপন সংবাদের ভিক্তিতে ফেনী পৌর এলাকার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের চাড়িপুর এলাকার দুলাল মিয়ার কলোনির একটি ঘরে বিভিন্ন ধরনের বেশ কিছু পাখী অবৈধভাবে কয়েকটি খাঁচায় আটক রাখা হয়েছে। খবর পেয়ে ফেনী জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদা কুলসুম কলি ও সুবল চাকমার নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। রোববার দুপুরে বিভিন্ন প্রজাতির ৩৫০টি পাখি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত পাখির মধ্যে রয়েছে-২৮০টি চন্দন টিয়া, ১৩টি মুনিয়া, ৫০টি শালিক ও ৭টি দেশি টিয়া পাখি।

এ সময় বন্য পাখি অবৈধভাবে নিজের হেফাজতে রাখার অপরাধে খুলনা জেলার সোনাডাঙা থানার হাফিজ নগর এলাকার আতাহার আলী শিকদারের ছেলে মো. আজাহার আলী শিকদার (৩০) ও মো. রাসেল শিকদার (২৮) গ্রেপ্তার করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালতে উভয়কে দুই মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। গ্রেপ্তারদের ফেনীর কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

দুপুর ২ টার দিকে উদ্ধার করা পাখিগুলো ফেনী সদর উপজেলার কাজিরবাগ ইকোপার্কে অবমুক্ত করা হয়। এ সময় ফেনী জেলা প্রশাসনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদা কুলসুম কলি ও সুবল চাকমা, বন বিভাগের ফেনী সদর উপজেলার রেঞ্জ কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র ভৌমিক উপস্থিত ছিলেন।

ফেনী জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদা কুলসুম মনি বলেন, “অবৈধভাবে বন্যপ্রাণী বিক্রয় ও সংরক্ষণ আইন ২০১২ এর ৩৪ (খ) ধারায় অভিযুক্ত দুইজন তাদের অপরাধ স্বীকার করায় তাদেরকে দুই মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়ে ফেনী কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।”

এক মাস আগে তাদের বাবা আতাহার আলী সিকদার খুলনার সোনাকান্দা থানার হাফিজ নগরের দীল মোহাম্মদের ছেলে একই অপরাধে গ্রেপ্তার হয়ে ফেনী কারাগারে রয়েছেন।

Link copied!